আব্দুল্লাহ আল মামুন(টুকু)
ভূয়াপুর(টাংগাইল) প্রতিনিধি :

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ আগামী ১ এপ্রিল প্রতিবাদ সমাবেশ করবে। ওইদিন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১০ টায় অনুষ্ঠিত হবে এ প্রতিবাদ সমাবেশ।

গতকাল হেফাজতে ইসলাম আহুত হরতালে সমর্থন জানিয়ে মাঠে নেমে এ কর্মসূচি ঘোষণা করে দলটি। এ সময় দলের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, ‘সরকার অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে মানুষ হত্যা করতে দ্বিধা করছে না। নিজেদের ক্ষমতার কাছে মানুষের জানমালের কোন মূল্য নেই। সারাদেশে অসংখ্য মানুষ হত্যা এবং শত শত মানুষের রক্ত ঝরিয়ে সরকারের আখের রক্ষা হবে না।’

তিনি বলেন, ‘সারাদেশে হরতাল পালনকালে নিরীহ মাদরাসার ছাত্র ও তৌহিদী জনতার উপর পুলিশ-বিজিবি নির্বিচারে গুলি করে। বি-বাড়ীয়ায় এপর্যন্ত ১১জন, হাটহাজারীতে ৪জনকে শহীদ করে। তাছাড়া বয়োবৃদ্ধ আলেমেদীন মাওলানা আব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুরকে পুলিশ গুলি করে আহত করেছে। এটাই প্রমাণ করে এদের কাছে দেশের কেউই নিরাপদ নয়।’

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, কেএম আতিকুর রহমান, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা নেছার উদ্দিন, উত্তর সেক্রেটারী মাওলানা আরিফুল ইসলাম, ছাত্রনেতা শেখ মুহাম্মদ আলআমিন।

সমাবেশে ঘোষিত ৬ দফা দাবি মেনে নিতে সরকারের কাছে জোর দাবি জানানো হয়। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, চট্টগ্রামের হাটহাজারী এবং বি-বাড়িয়ায় যে সব পুলিশ মিছিলে গুলি চালিয়ে হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে তাদেরকে বরখাস্ত করতে হবে। বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। হাটহাজারী থানার ওসিকে দ্রুত চাকুরী থেকে বরখাস্ত করতে হবে। প্রত্যেক শহীদ পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপুরণ এবং আহতদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। মোদি বিরোধী আন্দোলনে যারা গ্রেফতার হয়েছেন, তাদের দ্রুত মুক্তি দিতে হবে। হয়রানিমূলক সকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *