জসিম উদ্দিন জনি আত্রাই, (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর আত্রাইয়ে ইউনিয়ন নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়ন নিতে ঢাকায় ছুটছেন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা। কে পাবেন মনোয়ন তা নিয়ে চায়ের দোকানসহ পাড়ার অলিগলি স্বরব।

উল্লেখ্য, নওগাঁর আত্রাইয়ে মোট ৮টি ইউনিয়ন। শাহাগোলা, ভোঁপাড়া, আহসানগঞ্জ,পাঁচুপুর, বিশা,মনীয়ারী, কালিকাপুর, হাটকালুপাড়া।

এই ৮টি ইউনিউয়নের নির্বাচনের মধ্যে সব চাইতে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন হলো ৫ নং বিশা ইউনিয়নের নির্বাচন। এ নির্বাচনকে ঘিরে ৫ নং বিশা ইউনিয়নে আ’লীগের ১ ডজনেরও বেশি নেতা নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী।

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সবাই উপজেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে তদবিরে ব্যস্ত রয়েছেন। স্থানীয় একাধিক নেতা এই তথ্য জানিয়েছেন।কে হচ্ছেন বিশা ইউনিয়নে এবার নৌকার অভিভাবক।

তবে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে আছেন ৪ থেকে ৫ জন।
চুড়ান্ত মনোনয়ন যিনিই পাবেন তাকে বিজয়ী করার অঙ্গীকার করেছেন সকলে। এদিকে চূড়ান্ত প্রার্থী মনোনয়নে অধিকতর সতর্কতার আহ্বান জানিয়েছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। তা নাহলে এ নির্বাচনে ভরাডুবির শঙ্কা তাদের।

ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই ইউনিয়নে আ’লীগের যিনি মনোনয়ন পাবেন, তারই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার সম্ভবনা বেশি। দলীয় প্রধান যাকে নৌকার টিকিট দিবেন, তার পক্ষেই নেতাকর্মীরা কাজ করবেন।

তবে এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের মধ্য থেকে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, বর্তমান চেয়ারম্যানঃ মোঃ আঃ মান্নান মোল্লা(৪২)HSC, তোফাজ্জল হোসেন তোফা(৪৫)HSC, শহিদুল ইসলাম(৫৭)HSC, ইসমাইল হোসেন(৫০) ৮ম শ্রেনি, সাইদুর রহমান শোভন (৩০) BSC, খোরশেদ আলম (৬০)MA, আনিছুর রহমান (৪৮), ছাইলাল হোসেন(৫৮), হুমায়ুন কবির (৩৪)।

তবে লিস্টে তাদের নাম পাঠানো হলেও নির্বাচনী মাঠে সক্রিয়ভাবে রয়েছেন মাত্র কয়েক জন প্রার্থী।

বর্তমান চেয়্যারম্যান আঃ মান্নান বলেন, আমি আশা বাদি যে, আমাকে দল থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে, কারন, আমি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি,দুই দুই বার আ’লীগ থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি এবং ২০১৬ তে নওগাঁ জেলার ৯৯জনের মধ্যে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হয়েছি। এবং দলের সাথে সবরকম ভাবে লেগে আছি এবং থাকবো ।

তোফাজ্জল হোসেন তোফা বলেন যে, ইউনিয়নে এবং উপজেলা পর্যায়ে বর্তমানে আমার কোন পদ না থাকলেও ১৯৯০ থেকে ৯৬ পর্যন্ত ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ,ইউনিয়ন আ’লীগর ১৯৯৬ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত সাংগঠনিক সম্পাদক,
২০০৭ -২০১০ পল্টন থানা শ্রমিকলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক, ২০১০ থেকে ২০১৩ সাধারণ সম্পাদক জাতীয় শ্রমিকলীগ শেরে বাংলা নগর থানা ঢাকা মহানগর উত্তর,২০১৩ হতে অদ্যবদি সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় শ্রমিকলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর, দলের জন্য কাজ করে আসছি। এখন জন্মস্থানের মানুষের সেবা করতে চাই।

শহিদুল ইসলাম বলেন, আমি আ’লীগের দূরদিনে মাঠে সার্বক্ষণীক ছিলাম, ২০০১ বিশা ইউনিয়নের যুবলীগের সভাপতি এবং সাবেক সভাপতি হিসাবে কাজ করে আসছি।

ইসমাইল হোসেন বলেন যে, দল করতে গিয়ে দলের কারনে জেল, জুলুম, নির্যাতন সহ্য করেছি। দলের কোনো পদে আছে কিনা যানতে চাইলে বলেন, আমি ইউনিয়ন আওমীলীগের সাধারণ সম্পাদক।

শোভন বলেন,আমি ছোট বেলা থেকে আ’লীগ কে ভালভাবাসি, আমি অল্প বয়সে রাজনীতির সাথে থাকার কারণ একটাই যে, দলকে টিকিয়ে রাখার জন্য এবং প্রধান মন্ত্রীর হাত কে শক্তিশালি করতে আমাদের মতন যুবকদের দলের দায়িত্ব নিতে হবে। বাপ-দাদা সবাই দলের জন্য কাজ করে গেছেন, তাই দলের প্রতি একটা আলাদা ভালোভাবাসা আছে। শোভন আরো বলেন, আমার দাদা মৃতঃ আঃ করিম সরদার স্বাধীনতার পরবর্তী সময় থেকে বিশা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি এবং চেয়ারম্যান ছিলেন, তারপর আমার বাবা মৃতঃ আঃ বারি কচি, চেয়ারম্যান ছিলেন, এই জন্য আমি আশাবাদি যে, আমাকে দলথেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

সম্ভাব্য এসব প্রার্থীর ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে গোটা এলাকা। প্রতিদিনই প্রার্থীদের সমর্থনে চলছে মোটরসাইকেল শোডাউন, মিটিং, মিছিল ও শোভাযাত্রা।

এদিকে, বিশা ইউনিয়নবাসীর দাবি-এলাকার নাগরিকদের সকল সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি ও উন্নয়নের বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে যেন দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *