মিরু হাসান বাপ্পী
আদমদিঘী (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা নিবাহি অফিসারের সিকিউরিটিগাড দুই আনসার সদস্য অস্ত্র সাথে নিয়ে অবৈধ্যভাবে উপজেলার চাঁপাপুর বাজারে প্রকাশ্য দিবালোকে এক ব্যবসাীয়কে পিটিয়ে , ভ্রাম্যমান আদালতে জেল জরিমানার ভয় দেখিয়ে তিন হাজার টাকা চাঁদা আদায়ের ঘটনা পুলিশ দিয়ে ডেকে এনে ধামাচাপা দিলেন ইউএনও সীমা শারমীন। এদিকে চাঁদাবাজী এঘটনার কোন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন না করে এভাবে ধামাচাপা দেয়ায় এলাকায় নানা গুঞ্জন চলছে।

উল্লেখ্য, আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনকারী আনসার রাকিবুল ইসলাম ও হাফিজ উদ্দিন ইউএনওকে ছাড়া এক সাংবাদিককে সাথে নিয়ে ঔই দুই আনসার সদস্য সর্টগান অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে গত ১৭ এপ্রিল শনিবার উপজেলার চাঁপাপুর বাজারে যায়। সেখানে বিভিন্ন মার্কেটে ও দোকানপাটে তারা হানা দেয়। ভ্রাম্যমান আদালতে জেল-জরিমানার ভয় দেখিয়ে ভীতিকর অবস্থা এবং ত্রাস সৃষ্টি করে। দোকানে দোকানে শুরু করে চাঁদাবাজি। এসময় জটলা করতে থাকে উৎসুক জনতা। এদের মধ্যে আব্দুর রাজ্জাক জেমস নামের এক ব্যবসায়ীও ছিল।

সে চাঁদাবাজির চিত্র ধারণ করছে এমন সন্দেহে তাকে ধরে ফেলে আনসার সদস্যরা। এক পর্যায়ে বেধরক চড়-থাপ মেরে টেনে হিঁচড়ে মোটর সাইকেলে করে বাজার থেকে কিছু দুরে নিয়ে গিয়ে ভ্রাম্যমান আদালতে জেল-জরিমানার ভয় দেথুয়ে তিন হাজার টাকা চাঁদা নেয়। এঘটনা বিভিন্ন গনসাধ্যম প্রকাশ সহ ফ্রেসবুকে মারপিটের চিত্র ভাইরাল হয়ে পড়লে

উল্টো অভিযুক্ত আনসার সদস্য রাকিবুল ইসলাম ব্যবসায়ী রাজ্জাকের নামে থানায় অভিযোগ করেন। এবিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ জালাল উদ্দীন গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আনসার সদস্যদের চাঁদাবাজির প্রাথমিক সত্যতা মিলেছে।

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গত বৃহস্পতিবার পুলিশ দিয়ে ফোনে আসাকে ডেকো নেয় উপজেলা পরিষদে সেখানে ইউএনও, থানার ওসি জালাল উদ্দীনের উপস্থিতে হাত ধরে মিমাংসা হয়ে ।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সীমা শারমিন বলেন, গত ২২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকালে থানা পুলিশের উপস্থিতিতে অভিযুক্ত আনসার সদস্যরা নির্যাতিত ব্যবসায়ী আব্দুর রাজ্জাক জেমস এর নিকট করা অপরাধ স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করার মাধ্যমে সংঘটিত ঘটনার আপোষ-মিমাংসা করা হয়েছে। পাশাপাশি ওই দুই আনসার সদস্যকে ক্যাম্পাস ডিউটির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *