আব্দুস সামাদ বাচ্চু আশাশুনি প্রতিনিধি : আশাশুনিতে সুপার সাইক্লোন আম্ফানে ভেঙ্গে যাওয়া পাউবো’র বেড়ী বাঁধের নির্মান কাজ ও এলাকার অবস্থা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে প্রতিমন্ত্রী উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নে বেড়ী বাঁধ পরিদর্শনে আসেন।
বাঁধ ভেঙ্গে শ্রীউলা ইউনিয়নসহ প্রতাপনগর ইউনিয়ন সম্পূর্ণ এবং আশাশুনি সদর ইউনিয়নে আংশিক ভাবে প্লাবিত হয়ে এলাকার মানুষ চরম বিপাকে রয়েছেন। দীর্ঘ প্রায় ৯ মাসেও বাঁধের কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় মানুষ কর্মহীন, বসবাসের ঘর ছাড়া হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করে আসছে। সম্প্রতি বাঁধটি নির্মান কাজ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। শ্রীউলার হাজরাখালী অংশে বাঁধ রক্ষার কাজ দেখতে ও ভাঙ্গন কবলিত মানুষের খোঁজখবর নিতে গিয়ে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বাঁধের কাজ চলছে। দ্রুতই কাজ শেষ হবে। জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জনগণের দুঃখ-দুর্দশার কথা ভেবে বাঁধ রক্ষার কাজসহ সকল প্রকার সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। আপনারা বাঁধকে সুরক্ষিত করতে বেশী করে গাছ লাগান। নদীর চরে ও বাঁধের পাশে গাছ লাগানো হলে বাঁধগুলো টেকসই হবে বলে তিনি জানান। পানি উন্নয়ন বোর্ডে কর্মকর্তাদেরকেও বাঁধকে মজবুত করতে চরে ও বাঁধে গাছ লাগানোর নির্দেশ প্রদান করেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, টেকসই বাঁধ নির্মান কাজ প্রথমে ১৪ ও ১৫ নং পোল্ডারে হবে, একনেকের বৈঠকে বিল পাশ হবে। এখনই আশাশুনিতে হবেনা। এসময় সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডাঃ আ ফ ম রুহুল হক এমপি, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিঃ সচিব রোকন-উদ-দৌলা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিঃ মহা পরিচালক (পরিকল্পনা) ড. মোঃ মিজানুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী রাফিউল্লাহ, শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আতাউল হক দোলন, আশাশুনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা, পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসীম বরণ চক্রবর্তী, শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিল, আনুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর আলম লিটন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে মন্ত্রী কোলা-ত্রিমহনী বাঁধ ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *