আমির হোসেন, গাজীপুরঃ ঈদ বোনাসের কথা বলে সাংবাদিকদের লাঞ্চিত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে গাসিক মেয়র সচিবের বিরুদ্ধে। বুধবার দুপুরে সাংবাদিক লাঞ্চনার এ ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়।

উপস্থিত সাংবাদিকদের অভিযোগ সকাল নয়টা থেকে মেয়রের পক্ষ থেকে ঈদ বোনাস দেওয়া হবে বলে বিভিন্ন মাধ্যমে সাংবাদিকদের জানানো হয়। সাংবাদিকগন সকাল নয়টা থেকে হারিকেন ফেক্টরীর ময়মনসিংহ রোডের পূর্ব পাশে অবস্থিত মেয়রের নিজ বাস ভবনের কার্যালয়ে একে একে আসতে শুরু করে। ভিতরে প্রবেশের সময় সাংবাদিকদের আইডি কার্ড এবং ভিজিটিং কার্ড চেক করা হয়। এসময় সকল সাংবাদিকদের ভিজিটিং কার্ড জমা নেওয়া হয়।

দুপুর ২.৩০ টার সময় মেয়র জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের সাথে সাক্ষাৎ করেন, সকল সাংবাদিকদের ঈদের শুভেচ্ছা জানান এবং সাংবাদিকদের ঈদ বোনাসের দায়িত্ব তার নিজস্ব সচিব রানা আহমেদকে দেন।

সচিব রানা আহমেদ ও তার সাথে থাকা ৪/৫ জন সহযোগী গেটের সামনে ঈদ বোনাসের খাম নিয়ে অবস্থান করেন। এ সময় সচিব একে একে সাংবাদিকদের ঈদ বোনাস নেওয়ার জন্য আহ্বান জানান।

কিন্তু ঈদ বোনাসের খাম দেওয়ার সময় পুনরায় সাংবাদিকদের আইডি কার্ড এবং ভিজিটিং কার্ড চেক করেন এবং সচিবের সহযোগী কয়েক জন ভিডিও করতে থাকেন। সচিবের সহযোগী কয়েকজন সাংবাদিকদের নিয়ে বিভিন্ন কটাক্ষ করতে থাকেন। তারা বলেন, এইটা কোন পত্রিকা কোন টিভি চ্যানেল জীবনে নামও শুনেনি! এ রকম বারংবার বলার সময় উপস্থিত সাংবাদিকরা অসম্মান বোধ করেন। উপস্থিত সাংবাদিক কয়েক জন তাদেরকে এ জাতীয় কথা না বলতে এবং ভিডিও না করতে অনুরোধ জানান।

সচিব এবং তার সহযোগীরা কোন রকম কর্নপাত না করে বলেন এটা মেয়রের আদেশ। এ সময় একজন আইপি টিভি চ্যানেল এস টিভি এর এক সাংবাদিককে সচিব চ্যালেঞ্চ করেন। বলেন আপনি সাংবাদিক না, কেন এসেছেন? চ্যানেল এস টিভি সাংবাদিক তৎক্ষনাৎ আইডি কার্ড প্রদর্শন করেন কিন্তু সচিবের নির্দেশে এস টিভি সাংবাদিককে কলার ধরে বাহিরের দিকে টেনে নিয়ে যান তার সহযোগীরা। এ সময় সচিবের সহযোগীরা তাকে বলতে থাকে তুই কেমন সাংবাদিক নিউজ দেখা।

উপস্থিত সাংবাদিকরা এ ঘটনা দেখে তাৎক্ষণাত প্রতিবাদ জানান, সাংবাদিকরা বলেন আমরা ঈদ বোনাস নিতে এসেছি মেয়র আমন্ত্রণ জানিয়েছে তাই এসেছি লাঞ্চিত হতে আসেনি।

মেয়রের সচিব রানা আহমেদ বলেন, মেয়ের তাদের নির্দেশ দিয়েছে যাচাই বাছাই করে সাংবাদিকদের ঈদ বোনাস দিতে। উপস্থিত সাংবাদিকরা বলেন যাচাই বাছাই করার এটা কোন ধরনের তরিকা। সে যে পত্রিকা কিংবা টিভি চ্যানেল এর হোক সাংবাদিকদের অপমান করার ক্ষমতা কাউকে দেওয়া হয়নি। সাংবাদিকরা জাতির আয়না সাংবাদিকদের সাথে এ ধরনের ব্যবহার মোটেও কাম্য নয়। আমাদের বোনাস লাগবেনা চলে যাব। পরিস্থিতি খারাপ দেখে সচিব কিছুটা ইতস্তত বোধ করেন। সাংবাদিকদের শান্ত করার চেষ্টা করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভুক্তভোগী সাংবাদিক বলেন আমি দীর্ঘ দেড় বছর যাবৎ চ্যানেল এস টিভিতে বিশেষ প্রতিনিধি ঢাকা ডিভিশন হিসেবে কাজ করে আসছি। আমি দেখতে খাটো গায়ের রং কালো বলে তারা আমাকে সন্দেহ করেছে। সন্দেহ করে আমাকে লাঞ্চিত করেছে। পরে আমার আইডি কার্ড এবং অন্যান্য তথ্য দিলে তারা নিশ্চিত হয় আমি সাংবাদিক। এ ঘটনায় আমি খুবই অপমান বোধ করেছি। সাংবাদিক বলে কি ঈদ বোনাসের কথা বলে লাঞ্চিত করবে?

এ ঘটনা উপস্থিত অন্যান্য সাংবাদিকরা শুনে দুঃখ প্রকাশ করেন। সাংবাদিকদের বোনাসের কথা বলে ডেকে এনে মুবাইলে ভিডিও করা এবং এভাবে আইডি কার্ড চেক করার নামে অপমান করা মোটেও কাম্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *