নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
আজ বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই কুমিল্লার “জাগ্রত সিক্সটিন টিম” ১৩ টি অসহায় পরিবারের মাঝে ৩টি রিকশা ও ১০টি সেলাই মেশিন অনুদান দেন। গত ৩০ মার্চে ১টি রিকশা বিনামূল্যে বিতরণ করেন।

করোনা মহামারীতে যখন সারাবিশ্ব স্তব্ধ! তার ছুয়া বাংলাদেশে প্রভাবিত হওয়ার পর থেকেই জনজীবনে নেমে আসে হতাশা, কিভাবে তাদের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখবে। আর বিভিন্ন কল-কারখানা, শিল্প-প্রতিষ্ঠান, বে-সরকারী ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান থেকে হাজার হাজার শ্রমিক ছাঁটাই করায় কর্মহীন হয়ে যায় লক্ষ লক্ষ মানুষ। বিআইডিএস’র তথ্য মতে করোনায় আয় কমেছে ১ কোটি ৬৪ লাখ লোকের, বিবিসি’র তথ্য অনুযায়ী গত এপ্রিল-জুলাইয়ে বেকারত্ব বেড়েছে ১০ গুণ। কাজ না পেয়ে দিনমজুর শ্রেণীর মানুষের মধ্যে বেড়েছে হতাশার ছাপ, মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো চোখে-মুখে অন্ধকার দেখছেন। ঠিক তখনই তরুণ ব্যবসায়ী মো. রাশেদ আলম বন্ধু-বান্ধবসহ এলাকার পরিচিত যুবকদের নিয়ে ‘জাগ্রত সিক্সটিন’ নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করে ১০ কেজি চাল, ২ লি. তেল, ৫ কেজি আলু, ৩ কেজি পেঁয়াজ, ১ কেজি ডাল বস্তায় করে রাতের অাধাঁরে জাগ্রত সিক্সটিনের সদস্যরা পৌঁছে দেন ১৫০ জন কর্মহীন পরিবারের মাঝে এবং ঈদ-উল-আযহায় অসহায়দের মাঝে কোরবানীর মাংস বিতরণ ঈদ সামগ্রী বিতরণ, ইফতার সামগ্রী বিতরণ, বই বিতরণ, বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি। এভাবে ডিসেম্বর ২০২০ সাল পর্যন্ত ২০০০ অসহায় পরিবারকে সাহায্য করছেন। ২০২১ সালে এসে তিনি বুঝতে পারলেন তার সংগঠনের দেওয়া এসব খাদ্য সামগ্রী দারিদ্রতা বিমোচনে কোনো কাজ হচ্ছে না, তখন খাদ্য সামগ্রী না দিয়ে একটি নতুন ‘রিকশা ও সেলাই মেশিন’ প্রকল্প হাতে নিয়েছেন যাতে করে অন্তত একটি পরিবারের মাঝে স্বচ্ছলতা ফিরে আসে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রথমে এক অসহায় দরিদ্র পনিবারের মাঝে ১ টি রিকশা অনুদান হিসেবে প্রদান করেন, এতেই আশেপাশের এলাকায় ভালো সারা জাগে এবং এই কার্যক্রমে ভূয়সী প্রশংসা করে বিত্তবানরা এগিয়ে আসবেন বলে আশস্ত করেন। এভাবে যদি বিত্তবান শ্রেণীর মানুষ এগিয়ে আসেন তাহলে আগামী কয়েক বছর পর আর আমাদের আশেপাশের অনন্ত ১৫/১৬ টি গ্রামের মধ্যে কোনো দরিদ্র পরিবার থাকবে না বলে বিশ্বাস করেন টিম জাগ্রত সিক্সটিনের সভাপতি মো. রাশেদ আলম।

অনুষ্ঠানে সমাপনী বক্তব্যে সভাপতি মো. রাশেদ আলম আগামীতে ভূমিহীন দরিদ্র পরিবারের জন্য একটি ঘর একটি বাড়ি প্রকল্পের আওতাভুক্ত করতে এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাবি সমাজকল্যাণ অ্যালামনাই ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আনিসুর রহমান মীর, কবি ও অ্যাডভোকেট সাইফুল আলীম, আক্তারুজ্জামান ভুইয়া বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নয়া পল্টন ঢাকা, ধামঘর ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি আবদুল আউয়াল মীর,
সংগঠনের সদস্য পরমতলা গ্রামের জাকারিয়া, আঁড়ালিয়া গ্রামের মেহেদী, ভাগলপুর গ্রামের হিমেল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *