মিঠাপুকুর প্রতিনিধি:

বাংলদেশের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ডাংগুলি খেলাকে বর্তমান সমাজে আর দেখা যায় না বললেই চলে । হারিয়ে গেছে এই খেলা গুলো। বর্তমান সমাজের ডিজিটাল ব্যবস্থাতে আর দেখা যাই না ঐতিহ্যবাহী ডাংগুলি ।এক সময় বাংলাদেশের শিশু থেকে যুবকের প্রিয় খেলা ছিল ডাংগুলি। ডাংগুলি খেলা গ্রামীণ খেলা গুলোর মধ্যে একটা জনপ্রিয় খেলা। অথচ সময়ের সাথে সাথে অন্যান্য গ্রামীণ খেলাধুলার পাশাপাশি ডাংগুলি খেলাটি আজ সময়ের পথপরিক্রমায় হারিয়ে গেছে। বিগত দিনের গ্রামীণ যুবকারা যে বয়সে গ্রাম্য খেলাধুলা নিয়ে মেতে থাকত, ডিজিটাল এই যুগে এখন সে বয়সে তারা যান্ত্রিক খেলাধুলায় মেতে থাকে। আগের দিনের পাড়া মহল্লার যুবকেরা দলবেঁধে গ্রাম্য খেলা বিশেষ করে ডাংগুলি খেলায় মেতে হারিয়ে যেত তাদের আপন ভুবনে। অথচ বর্তমানে ওই বয়সের যুবকরা এখন গ্রাম্য খেলাধুলা বাদ দিয়ে কম্পিউটার গেমস, ভিডিও গেমস সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক, টুইটার, ইউটুব, ইত্যাদি) নিয়ে ব্যস্ত থাকে।
দেশের বেশিরভাগ মানুষ গ্রামাঞ্চলে বাস করলেও কালের বিবর্তনে যুগের গতানুগতিক হাওয়ায় গ্রামের জনপ্রিয় খেলাগুলো আজ হারিয়ে যেতে বসেছে। রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার অভিরামপুর গ্রামের এক বৃদ্ধ জানান, আমরা যখন ষোল কি আঠারো বছর বয়সের যুবক ছিলাম তখন পাতারে গরু চড়াতে গিয়ে ডাংগুলি খেলতাম। আমরা যখন খেলতাম পথিক সহ আরো গরু নিয়ে আসা অন্য বন্ধুরা বসে বসে দেখত আর কালের বিবর্তনে আধুনিকতার ছোয়া লাগার কারণে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ডাংগুলি খেলা আমাদের মাঝ থেকে আজ হারিয়ে যাবার পথে এখন আর দেখা যায় না। এই খেলাকে আর কেউ উপভোগ করতে পারে না এই রোমাঞ্চকর খেলা । এখন কার যুবকরা তারা সারাদিন ফেজবুক, কম্পিউটার গেমস, ভিডিও গেমস সহ নানা গেমসে আসক্ত হয়েছে বর্তমান যুবকরা। গ্রীমন খেলা গুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে । গ্রামের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ও সচেতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন বৃদ্ধরা। যাতে করে হারিয়ে না যায় গ্রামীণ খেলাধুলা।

Leave a Reply