সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা নবারুণ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের বেতন কমালেন প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক গাজী।

নবারুণ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দারিদ্র মেধাবী ২০২১ সালের শিক্ষার্থীদের বেতন কমায়ে দিলেন।

বৃহস্পতিবার থেকে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। বিদ্যালয়ে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা জানায়, করোনার কারণে অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার আর্থিক সমস্যার মধ্যে আছে। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের বেতন দিতে গিয়ে অভিভাবকদের অনেকের কষ্ট হচ্ছিল। যার কারণে অনেকে পড়ালেখা বন্ধ করে দিচ্ছে। এ অবস্থায় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এক বছরের জন্য সব শিক্ষার্থীদের বেতন কমানোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এতে শিক্ষার্থীদের অনেকটাই সুবিধা হয়েছে। এখন শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় আরও আগ্রহী হয়ে উঠবে। ভালো ফলাফল করে বিদ্যালয়ে সুনাম বয়ে আনবে। শিক্ষার্থীরা অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও বেতন কমানোর বিষয়টি বিবেচনা করার দাবি জানান।

বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী আমেনা খাতুন বলেন, করোনাকালীন আমার বাবার কাজ না থাকার কারণে স্কুলের বেতনের টাকা নিয়ে আমার পরিবার চিন্তায় ছিলেন। আমরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের হওয়াতে অনেকটাই কষ্ট হয়ে যায় আমাদের জন্য। আমাদের বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে বেতন কমায়ে দেওয়ার কারণে আমাদের অনেক সুবিধা হয়েছে। আমার বাবা-মাকে আর স্কুলের বেতনের চিন্তা করতে হবে না। এ জন্য আমি আমাদের বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষককে ধন্যবাদ জানাই।

দশম শ্রেণিয় শিক্ষার্থী ফাতেমা খাতুন বলেন, আমাদের মতো অনেক পরিবার আছে, যাদের স্কুলের বেতনের টাকা নিয়ে চিন্তা করতে হয় না। টাকার অভাবে অনেকের পড়ালেখা বন্ধ করে দেয়। আমাদের স্যাররা যে পদক্ষেপ নিয়েছেন তাতে করে অনেক সহপাঠীরা পড়ালেখা করার জন্য এগিয়ে আসবে। স্যাররা যেহেতু আমাদের জন্য এত বড় সুবিধা করে দিয়েছে আমরাও ভালো ফলাফল করে বিদ্যালয়কে দেখিয়ে দেব।

এ দিকে নবারুণ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক গাজী বলেন শিক্ষার্থীরা যেন টাকার অভাবে পড়ালেখা বন্ধ না হয় সেজন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সব শিক্ষার্থীর বেতন কমানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। বিদ্যালয়টিতে মোট ১ হাজার ৬০ জন শিক্ষার্থী রয়েছেন।

Leave a Reply