রাশিদুল ইসলাম,গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধিঃ

বর্তমানে দেশে করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃত্যু হার প্রতিনিয়ত বেড়ে চলছে। পরিস্থিতি যেন নিয়ন্ত্রের বাহিরে না যায় সেই লক্ষে সরকার করোনার বিস্তার ঠেকাতে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত আটদিনের কঠোর লকডাউন ঘোষনা করেছেন।

তবে লকডাউনের ঘোষণার পর প্রথম দিনে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার মানুষ স্বাভাবিক দিনের মতোই জীবন যাত্রা চালাচ্ছেন।

আজ বুধবার (১৪ এপ্রিল) সকাল থেকেই উপজেলার বাজারগুলোতে দেখা গেছে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের দোকান ব্যতীত সকল শপিংমল ও দোকানপাট বন্ধ দেখা গেলেও দোকান মালিকগণ নিজ নিজ দোকানের পাশে বসে চুপিসারে কেনাবেচা করছে।

এখানেই শেষ নয় প্রয়োজন ছাড়াই বাজারগুলোতে মাস্কবিহীন মানুষের চলাফেরা ও রাস্তায় রাস্তায় যথেষ্ট পরিমাণ অটোরিক্সা, ভ্যান চলতে দেখা গেছে।

বাজারে আসা বেশকিছু মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে- গেলো বছর করোনার কারণে কাজ করতে না পেরে ঋণগ্রস্থ হয়েছি। সেই ঋণের বোঝা এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন। এবার লকডাউনে কাজ না করলে খাবার দেবে কে? তাই জীবনের প্রয়োজনে আইন ভঙ্গ করতে বাধ্য হয়েছি।

এদিকে উপজেলা বস্ত্র ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব বরকত আলী জানান, লকডাউনে তার সমিতির সকল দোকানপাট বন্ধ আছে। বাজারের অন্য ব্যবসায়ীরা গোপনে কেনাবেচা করতে পারে এ বিষয়ে আমার জানা নেই।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা মাঠে আছি, প্রয়োজনে কঠোর অবস্থানে যাওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তমাল হোসেন জানান, লকডাউন বাস্তবায়নে প্রশাসন মাঠে আছে। প্রয়োজনে প্রশাসন কঠোর থেকে কঠোরতর অবস্থানে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *