রাশিদুল ইসলাম গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধিঃ

নাটোরের গুরুদাসপুরে মহিবুল্লাহ (৬) নামে এক শিশুকে গলাকেটে হত্যার অভিযোগে নয়ন আলী নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ।

সেই সঙ্গে হত্যার কাজে ব্যবহৃত চাকু ও মহিবুল্লাহ মোবাইল ফোনটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উল্লেখ্য,শিশু মহিবুল্লাহ ১৫ দিন আগে নানার বাড়িতে মায়ের সঙ্গে দেখা করতে যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে একটি স্মার্টফোন নিয়ে কার্টুন দেখতে দেখতে বাড়ির বাইরে যায়। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলেও যখন শিশুটি বাড়িতে না আসায় তখন আত্বীয় স্বজন খুঁজাখুঁজি শুরু করেন। রাতে এলাকায় মাইকিং করা হয়। রাত সাড়ে ৮ টার দিকে নানার বাড়ি গুরুদাসপুর উপজেলার সাবগাড়ী ভিটাপাড়ার অদূরে একটি ভুট্টার জমি থেকে শিশুটির গলাকাটা বস্তবন্দি মরদেহ দেখতে পায় এলাকাবাসী। পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

আজ শুক্রবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নাটোর মর্গে পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার সকালে অভিযান চালিয়ে হত্যকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সাবগাড়ী গ্রামের মন্টুর ছেলে মো. নয়নকে রক্তমাখা ছুরি ও একটি মোবাইল ফোনসহ আটক করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

মহিবুল্লাহ পার্শ্ববর্তী সিংড়া উপজেলার গুটিয়া মহিষমারী গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ইসাহক আলীর ছেলে।

এ ব্যাপারে গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, হত্যার ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। তবে কি কারণে এ হত্যা, এ ব্যাপারে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে সব তথ্য জানানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *