আলিফ হোসেন চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি:
চুয়াডাঙ্গা জেলার সদরের কুতুবপুর ইউনিয়নের মাঠের ধানি জমিতে পুকুর কাটার হিড়িক বেড়েছে। মাঠে কৃষি জমিতে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কাটাতে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়। অবৈধভাবে ফসলি জমির মাটি কাটার ফলে খাদ্য ঘারতি হতে পারে বলে ধারণা করছে সচেতন মহল।সরেজমিনে ও অভিযোগে জানা যায়, কুতুবপুর এবং আসান্দপুর মাঠের
এই দুই গ্রামের মাঝ মাঠে ভেকু মেশিন দিয়ে অবৈধ উপায়ে কৃষি জমি থেকে মাটি উত্তোলন করে চলেছে চিহিৃন্ত দুই জন ভূমিদস্যু। চিহিৃন্ত এই দুইজন ভূমিদস্যূরা হলো কুতুবপুর গ্রামের মহাশিন হোসেন,এবং দশমী গ্রামের পিন্টু হোসেন। বেশ কিছুদিন যাবত এই দুই চিহিৃন্ত ভূমিদস্যু কুতুবপুর এবং আসান্দপুর এই দুই গ্রামের মাঝের মাঠে ফসলি জমি থেকে অবৈধ ভাবে মাটি কেটে চুয়াডাঙ্গা সদরের বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করে আসছে। এই দুই গ্রামের কৃষকরা তাদের মাঠের ফসলি জমি থেকে মাটি কে বিক্রি করতে একাধিকবার নিষেধ করলেও তারা কোনো কর্নপাত না করাই কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। ভূমিদস্যুরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের ভয়ে জোর গলায় কথাও বলতে পারছে না। এ বিষয়ে ঐ এলকার ভূক্তভোগী কৃষকরা কৃষি জমি বাঁচাতে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সু-দৃষ্টি কামনা করেছে।এ বিষয়ে

চুয়াডাঙ্গা সদরের কৃষি অফিস স্যার মো: মোস্তাফিজুর রহমান।তিনি
জানান, অবৈধ উপায়ে মাটি কেটে বিক্রিকারী যেই হোক না কেনো তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *