মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন, চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি: পবিত্র কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জমে উঠেছে পশুর হাট। প্রতিবারের ন্যায় এবারও প্রতিটি পশুর হাটে বিপুল পরিমাণ দেশীয় গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়া বিক্রির জন্য নিয়ে আসছেন বিক্রেতারা। করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি থাকায় এবার হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে এবং বেচাকেনা করতে দেখা গেছে বেশিরভাগ ক্রেতা-বিক্রেতাদের। পশুর হাটে প্রবেশের ক্ষেত্রে মুখে মাস্ক পড়াসহ স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রসাশন ও থানা পুলিশও বেশ সজাগ রয়েছে।

উপজেলার চৌদ্দগ্রাম হাইস্কুল মাঠ, চিওড়া কাজীর বাজার, বাতিসার একতা বাজার, মুন্সীরহাটের দেড়কোটা বাজার, কাশিনগরের জয়মঙ্গলপুর বাজার সহ কয়েকটি বাজারে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, এবার বড় গরুর পাশাপাশি ছোট গুরুগুলো ছিলো দেখার মত। সে হিসেবে বড় গরুর দামটাও একটু চড়া। দফায় দফায় লক ডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধির কারণে গরু ছাগল খামারীরা এক সপ্তাহ আগেও বেশ শঙ্কায় ছিলেন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির ফলে এরই মধ্যে সারাদেশের ন্যায় চৌদ্দগ্রামের পশুর হাটের সংখ্যা কমিয়ে আনা হয়েছে। গেল বছরও করোনার কারণে নানা সীমাবদ্ধতায় ব্যবসা করতে পারেনি খামারীরা। এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন শিথিলতা দেয়ায় খামারীদের মাঝে স্বস্তিভাব লক্ষ্য করা গেছে।

উপজেলার সবচেয়ে বেশি ওজনের (৩০ মণ) গুরুটি দেখতে গুনবতীর দশবাহাতে মাউন্ট এ্যাগ্রো ফার্মে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, গ্রামীন পরিবেশে সম্পূর্ণ দেশীয় ও প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে বিগবস ও জুনিয়র বসকে কুরবানীর জন্য তৈরী করা হয়েছে। বিক্রেতা মো: শাহজাহান চৌধুরী সাজু ৩০ মণ ওজনের বিগবসের জন্য ২০ লক্ষ টাকা, ১৯ মণ ওজনের জুনিয়র বসের দাম হাঁকিয়েছেন ১০ লক্ষ টাকা। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বসদের কোনোটি বিক্রি না হলেও ক্রেতারা বিভিন্ন দাম বলছেন। বর্তমানে গরুগুলো উচ্চ দামে বিক্রির আশায় চট্টগ্রামের সাগরিকা পশুর হাটে নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে বিগবসের দাম উঠেছে সাড়ে নয় লাখ টাকা আর জুনিয়র বসের দাম উঠেছে সাড়ে তিন লাখ টাকা।

এবিষয়ে চৌদ্দগ্রামের গুনবতী ইউনিয়নের দশবাহা গ্রামের মাউন্ট এ্যাগ্রো ফার্মের মালিক মো: শাহ্জাহান চৌধুরী সাজু বলেন, ‘আমার বাবার আমল থেকেই আমাদের গরুর খামার ছিলো। ২০১০ সালে বিদেশ থেকে এসে গরু খামারের সাথে জড়িত হই। আমার খামারের গাভী থেকে উৎপাদিত ব্রাহামা জাতের বাচুরই আজকের বিগবস ও জুনিয়র বস। দু’টির পেছনে কয়েক লাখ টাকা খরচ করি। আচার-আচরণে বসের মত হওয়ায় এদের নামকরণ করা হয়েছে বিগবস ও জুনিয়র বস। পবিত্র কুরবানীর ঈদ উপলক্ষে বিগবস ও জুনিয়র বসকে দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে লোকজন আসছে। দু’টি গরুর লাইভ ওয়েট যথাক্রমে ৩০ ও ১৯ মণ, তাই দাম একটু বেশি। গরু দু’টি বিক্রি করে ভালো লাভের প্রত্যাশা করছি’।

Leave a Reply