মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন, চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি: বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন বুধবার (১০ নভেম্বর) বিকালে ৪র্থ ধাপে ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করেছে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্তৃক ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের ১২টি ইউনিয়ন নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র দাখিলের তারিখ ২৫ নভেম্বর, বাছাইয়ের তারিখ ২৯ নভেম্বর, আপিল দায়েরের তারিখ ৩০ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর, আপিল নিষ্পত্তি ৩ ডিসেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর, প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৬ ডিসেম্বর, প্রতীক বরাদ্ধ ৭ ডিসেম্বর ও ভোট গ্রহণের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর-২০২১।

তফসিল ঘোষনার পর আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে চৌদ্দগ্রামের ১২টি ইউনিয়নে হাট-বাজার ও চা দোকানগুলোতে বইছে নির্বাচনী আমেজ। সম্ভাব্য সকল প্রার্থীই নিজেদের প্রার্থীতা জানান দিয়ে উঠোন বৈঠক, গণসংযোগসহ বিভিন্ন সামাজিক আচার-অনুষ্ঠানে যোগদানের মাধ্যমে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

কালিকাপুর ইউনিয়নের আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক, বিশিষ্ট সমাজসেবক মো: আবুল খায়ের প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। নির্বাচনকে ঘিরে দীর্ঘদিন ধরেই তিনি প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিলের মাধ্যমে কুমিল্লা জেলার অসহায় নারী-শিশুদের অধিকার সুরক্ষায় বিজ্ঞ আদালতের সহায়ক হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা রাখার পাশাপাশি সাধারণ মানুষের সুখে দুঃখে পাশে থেকে এবং মাদক-সন্ত্রাস, চাঁদাবাজের বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা রেখে নিজেকে একজন জনবান্ধব নেতা হিসেবে গড়ে তুলেছেন। দলীয় মনোনয়ন ও সমর্থনের আশায় কেন্দ্রীয় নির্দেশার অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো: আবুল খায়ের বলেন, তফসিল ঘোষনার পর থেকেই এলাকায় নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করছে। ইউনিয়নের সুধিমহল ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে আলোচনা করে সার্বিক পরিবর্তনের আশায় চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। নিজের প্রার্থীতা জানান দিতে দিবানিশি বিভিন্ন গ্রামে ছুটে গিয়ে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করছি। ইতিমধ্যে এলাকাবাসীর সাথে ব্যাপক গণসংযোগ সহ উঠোন বৈঠক চালিয়ে যাচ্ছি। দলীয় মনোনয়ন পেলে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে ইউনিয়নবাসীকে সাথে নিয়ে কালিকাপুর ইউনিয়নে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে, নারী-শিশু সহ গরীব-অসহায় মানুষের ন্যায্য অধিকার সুরক্ষায় কাজ করবো। মাদক, সন্ত্রাস ও ইভটিজিং মুক্ত একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলবো ইনশাআল্লাহ্।

Leave a Reply