ইলিয়াছ হোসাইন তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি:
তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের মুড়াগাছা (হরিহরনগর) গ্রামের জিল্লা গোলদারের পুত্র এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ছিনতাইকারী ও চোর কাইমুল গোলদার (৩ জুন) রাত আনুমানিক ২ টার সময় একই গ্রামের কালাম সরদারের পুত্র ওলিয়ার সরদারের ঘরে চুরি করতে গিয়ে ধরাশায়ী হয়েছে। চুরি করতে ঘরে ঢোকার সময় বুঝতে পেরে ওলিয়ার সহ বাড়ির লোকজন কাইমুলকে ধরে ফেলে। এসময় ওলিয়ার সহ বাড়ির লোকজনের চিৎকারে পাড়ার সকলের ঘুম ভেঙে য়ায় এবং চারিদিক থেকে লোকজন ছুটে আসে। রাতে আটকের পর কাইমুলকে শেকল দিয়ে বেধে রাখা হয়। সকালে এলাকার শতশত জনগন ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সামনে ওলিয়ার সরদার এই ঘটনায় মামলা করতে রাজি না হওয়ায় স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মুচলেকা নিয়ে চোর কাইমুলকে তার মা এবং স্ত্রীর হাতে তুলে দেয়। কাইমুলের বিরুদ্ধে চুরি ছিনতাই সহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া কাইমুলের বিরুদ্ধে অস্ত্র সহ একাধীক মামলাও রয়েছে বলে জানাগেছে। কাইমুল এর সাথে জলদস্যু ও বনদস্যুদের সম্পৃক্ততা থাকার অভিযোগও পাওয়া গেছে। দস্যুতা করে সুন্দরবন এলাকা থেকে ফেরার পথে ব্যাগ ভর্তি টাকা ও আগ্নেয়াস্ত্রসহ কাইমুল প্রশাসনের হাতে আটক হয়েছিল বলে জানা গেছে। কাইমুল সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে আরো জানাগেছে, চুরি ছিনতাই সহ বিভিন্ন অপরাধ মুলক কাজ করার জন্য কাইমুলের বিশাল একটি গ্যাং রয়েছে। আর এই গ্যাংটিকে শেল্টার দিচ্ছে এলাকা এবং বাইরের অজ্ঞাত কিছু ক্ষমতাধর মানুষ। যে কারণে কাইমুল বারবার বড় বড় অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে বলে জানাগেছে। নিজ এলাকা সহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় বাড়িতে দোকানে চুরি, মাঠের শ্যালো মেশিন চুরি, কম্পিউটার মনিটর চুরি, মোটরসাইকেল ইজিবাইক ছিনতাই সহ এমন কোন অপকর্ম নেই যা কাইমুল গ্যাং করেনা। এছাড়াও কাইমুলের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগও রয়েছে। এখনই প্রতিহত করতে না পারলে ভবিষ্যতে গ্যাংটি ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করবে এমনটাই দাবি এলাকাবাসীর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *