রাশিদুল ইসলাম,নাটোর প্রতিনিধিঃ

নাটোরে তিনকুপুত্রের ’ হত্যার হুমকি নির্যাতন ও হুমকিতে অশীতিপর বিধবা মা আমেনা খাতুনের ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। নিজের বাস্তুভিটা ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য ওই নারীকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নাটোরের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রে জানা গেছে,নাটোরের সিংড়া উপজেলার চামারী ইউনিয়নের বাহাদুরপুর গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত শেখ রিয়াজ উদ্দিনের স্ত্রী আমেনা বেওয়ার ছেলে মেয়ে ১৯ জন । সন্তানদের সবাই উচ্চশিক্ষিত এবং স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত । দীর্ঘদিন ধরে তার তিন ছেলে শেখ মোঃ রেজাউল করিম, শেখ মোঃ আবু রায়হান, শেখ মোঃ আব্দুর রব কোনো প্রকার আর্থিক সাহায্য বা ভরণপোষণ খরচ প্রদান করেনা। উপরোন্ত তারা তাদের আর্থিক দেনা পরিশোধের জন্য আমেনা খাতুনের নামে থাকা জমিজমা তিন ভাইয়ের নামে লিখে দিতে চাপ প্রয়োগ করে ।

এছাড়া ছোট ছেলে রেন্টুর ওয়ারিশ সূত্রে পাওয়া জমি বিক্রয় করিতে গেলে শেখ মোঃ রেজাউল করিম, শেখ মোঃ আব্দুর রব, শেখ মোঃ আবু রায়হানের সমন্বয়ে একটি সংঘবদ্ধ গ্রুপ গ্রামের বিভিন্ন লোকজন কে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং জমি ক্রয় করতে নিষেধ করে। এতে তাদের ভয়ে গ্রামের সাধারণ মানুষ ভীতসন্তস্থ হয়ে জমি ক্রয়ে অনীহা প্রকাশ করে। তারা শুধু এসব কাজ করেই ক্ষান্ত হয়নি আমেনা খাতুনের বন্দকী জমির গ্রহীতাদের পাঠিয়ে টাকা আদায়ের জন্য অনবরত চাপ প্রদান করিতে বাধ্য করে। ফলে তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পরেন ।

গত মার্চ মাসে, আমেনা খাতুনের পুত্র শেখ মোঃ আব্দুর রব হঠাৎই বাড়িতে এসে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মা কে গালিগালাজ শুরু এবং গলা ধাক্কাতে ধাক্কাতে ঘরে নিয়ে যাওয়ায় উদ্যত হয়। এসময় আব্দুর রব কে কয়েকজন ব্যক্তি থামাতে আসলে আব্দুর রব তাদের দেখে নেওয়ার হুমকি দেন।

এছাড়া গত ২১ এপ্রিল বিকেলে আমেনা খাতুন পারিবারিক বিষয় নিয়ে বড় ছেলের সাথে মোবাইলে কথা বলার সময় অপর ছেলে আবু রায়হান ক্ষীপ্ত হয়ে ছোট ছেলে রেন্টুকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও এলোপাথাড়ি মারপিট করে এবং ঘরের দরজা, জানালা লাঠি দিয়ে ভাঙচুর করে । তাকে মারতে উদ্দত হয় এবং প্রাণনাশের হুমকি দেয় । জমি লিখে নেওয়ার জন্য এহীন কাজ নেই তারা তিনজন করতে পারেনা । তাই তাদের ভয়ে তিনি ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন । তিনি জীবনের নিরাপত্তা দাবী করেন ।

আমেনা খাতুনের স্বামীর নিজ নামীয় ১৮বিঘা জমির একক পুকুর আছে, যা দীর্ঘ সময় ধরে তার পুত্র শেখ মোঃ রেজাউল করিম, শেখ মোঃ রাশিদুল ইসলাম, শেখ মোঃ আব্দুর রব মিলিতভাবে পুকুরটি নিজেদের মধ্যে নামমাত্র লিজ প্রদানের মাধ্যমে ভোগ-দখল করে আসছে। লিজের টাকা আমেনা খাতুনের সকল সন্তানদের মাঝে বন্টনের কথা থাকলেও তা নিয়মিত বন্টন করা হয়না। পুকুরের পাড়ের চারিদিকে থাকা পুরাতন দামী মেহেগনী গাছ যার আনুমানিক মূল্য ২০লক্ষ টাকা, যা শেখ মোঃ রেজাউল করিম, শেখ মোঃ আবু রায়হান, শেখ মোঃ আব্দুর রব তাদের একক সিদ্ধান্তে কর্তন করে এবং বিক্রয় করিয়া বিক্রয়লব্ধ অর্থ নিজেরা আত্মসাৎ করে।

উক্ত পুকুরে শেখ মোঃ আব্দুর রব এর নিজ নামীয় অংশ ৩২.৬৬ শতক এবংআমেনা খাতুনের কন্যা রিনা-র নিকট হতে ক্রয়কৃত ১৬.৩৩ শতক জমি শর্ত মোতাবেক শেখ মোঃ আব্দুর রব এর অংশ (৪৮.৯৯ শতক)। পরবর্তীতে লোক মারফত খবর নিয়ে ইউনিয়ন ভূমি অফিস, নাজিরপুর এ গিয়ে তিনি জানতে পারেন, শেখ মোঃ আব্দুর রব ১.৩০৭৫ একর জমি তার নিজ নামে ভূয়া ভাবে খারিজ করে উক্ত জমি ইসলামী ব্যাংক নাটোর শাখায় ভূয়াভাবে কাগজ তৈরি করে মর্টগেজ করিয়াছে এবং বিপুল পরিমাণ অর্থ ঋণ নিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, আমেনা খাতুনের তিন পুত্রগ্ণ শেখ মোঃ রেজাউল করিম, শেখ মোঃ আবু রায়হান, শেখ মোঃ আব্দুর রব শিক্ষকতা পেশায় নিযুক্ত থাকলেও দীর্ঘদিন ধরেই মায়ের সাথে এসব জঘন্যতম কাজ করে যাচ্ছেন

তার ছেলে শেখ মোঃ আব্দুর রব জানান, মায়ের বয়স হয়েছে । তাকে আমার ভাইয়েরা ভুল বুঝিয়ে এসব মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন অভিযোগ করিয়েছে । আসলে এ ধরণের কোন ঘটনায় ঘটেনি ।

সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, এ ধরণের কোন অভিযোগ পায়নি পেলে তদন্তস্বাপক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *