মোঃ রিয়াজুর রহমান
পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালীতে সনামধন্য বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শুভাশীষ মুখার্জীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও জনসাধারণের মাঝে হয়রানি মূলক ও মিথ্যা তথ্য প্রচারের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন শুভাশীষ মুখার্জী।

গত ১লা জুন বুধবার বেলা এগারোটার সময় পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে এক লিখিত বক্তব্যে জানাযায়,বহুল প্রচারিত দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার হেডলাইন, মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে পিস্তল ঠেকিয়ে জমি জবরদখল চেষ্টা। এছাড়াও অনলাইন পোর্টাল নিউজ বাংলায়,মুক্তি যোদ্ধা বানাতেও পারি”বাতিল করতেও পারি”ও দৈনিক বাংলাদেশের আলো পত্রিকায় পটুয়াখালীতে মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক শিক্ষক পরিবারের সংবাদ সম্মেলন,এবং আমার বিরুদ্ধে মুক্তি যোদ্ধা পরিবার সহ একাধিক অসহায় হতদরিদ্র পরিবারের বসতবাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা সহ জমি দখল নেয়ার অপচেষ্টার প্রতিবাদে ভুমিদস্যু
হুন্ডি ব্যবসায়ী ও কালো টাকার মালিক উল্লেখ করেন।

এবিষয় রিতা চ্যাটার্জি গত ১লা জুন ২১ইং তারিখে আমার বিরুদ্ধে যে সংবাদ সম্মেলন করেছে তা আমার ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে আপত্তিকর মানহানিকর উদ্দেশ্য প্রোনীতভাবে যে সংবাদ সম্মেলন করেছে, তাতে আমার ও আমার পরিবারের সন্মান ক্ষুন্ন হয়েছে।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো উল্লেখ করে রিতা চ্যাটার্জি বলেন,পটুয়াখালী মৌজার ১৯২৮ নং খতিয়ান ভুক্ত ৬৮০০/৬৮০১ দাগে জমিদার আমল থেকে পূর্ব পুরুষদের এই সম্পতিতে বসবাস করে আসছেন। যা কিনা সত্যর বিপর্যয় মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।রিতা চ্যটার্জির শশুর মৃত,কানাই লাল চ্যাটার্জি ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা পর্যন্ত পটুয়াখালী শহরস্থ চরপাড়ার ভাড়া বাসায় কাটান। এবং স্বাধীনতার পর সেন্টারপাড়ায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেন।

সংবাদ সম্মেলনে রিতা চ্যাটার্জি উল্লেখ করেছেন যে, আমাদের দির্ঘকালের জরাজীর্ণ বসতগৃহ (মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক পরিবারের নির্মান কাজ প্রায় শেষের পথে) অথচ উল্লেখিত জমিতে বিঞ্জ সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে স্থিতিশীল অবস্থায় নিষেধাজ্ঞার আদেশ বলবত আছে। স্বিকার করেও আদালতের নির্দেশ অব মাননা করে (মোকদ্দমা নং ৬৫১৯) বিঞ্জ আদালতের আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে গায়ের জোরে নির্মান কাজ বিরোধীয় জমিতে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মান করতে গেলে আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে বিগত ২৮/৫/২১ ইং তারিখ পটুয়াখালী সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করি।

যার প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ উক্ত আদালতের নির্দেশে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। কিন্তুু তারা আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে রাতের আধারে কাজ চলমান রাখে।আমি বিষয়টি পৌরমেয়রকে অবহিত করলে পৌর কতৃপক্ষ বে-আইনি নির্মানকাজ বন্ধ রাখার আদেশ দেন।

সংবাদ সম্মেলনে রিতা চ্যাটার্জি আরো বলেন, তার বিরুদ্ধে নামে বে নামে কুয়াকাটায় বিলাসবহুল রিসোর্ট নির্মান ও প্রচুর জমি ক্রয়, এবং দূর্বল ব্যক্তিদের জমি হরন, ইত্যাদি জালিয়াতি এছাড়াও পশ্চিমবংঙ্গে হুন্ডি ব্যবসা, সুরম্ম যেসমস্ত কথা উল্লেখ করা হয়েছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন,আমি মুক্তি যোদ্ধা ও মুক্তি যোদ্ধা পরিবার সহ সাংবাদিকদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আমি দির্ঘদিন যাবৎ কষ্ট শ্রমদ্বারা আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে কৃষিবান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছি। সেই সাথে বহু ধর্মীও সামাজিক কর্মকান্ডে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি। আমার সফলতায় ঈর্ষানীত হয়ে কতিপয় দুষ্ট চক্র ও গড ফাদারের প্রোরোচনায় সংবাদ সম্মেলনকারীগন আমার বিরুদ্ধে যে মিথ্যা বানোয়াট ও মানহানি কর তথ্য উপস্থাপন করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এবং তা বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশ হয়েছে আমি তার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *