পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার মানসিক হাসপাতাল সংলগ্ন বুদের হাটে সন্ত্রাসীদের হামলায় পাবনা জেলা ছাত্রলীগের পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক মো. শাকিল শেখ গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত অবস্থায় তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে রেফার্ড করা হয়। বৃহস্পতিবার রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। মো. শাকিল শেখ পাবনা পৌরসভার ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শাহিন শেখের ছোট ভাই এবং সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।
১৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পাবনা পৌরসভার ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শাহিন শেখ জানান, পৌরসভার ১৫নং ওয়ার্ডে আমি নির্বাচিত হওয়ায় ক্রোধ ও আক্রোশে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় ১৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান হিরোক ও সায়েম শেখের নেতৃত্বে মাদক ব্যবসায়ী রফিক, দুলাল, মাহমুদুল হাসান সুমন, আমিরুল ইসলাম তাম্মা, ইয়াছিন, দোয়েল, উজ্জ্বল, ওমরসহ অন্যান্য সন্ত্রাসীরা আমার ছোট ভাই শাকিলের ওপর অতর্কিত হামলা করে গুরুতর আহত করে। আহত অবস্থায় তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়। আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য বর্তমানে তাকে ঢাকার শিকদার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে তার অবস্থা গুরুতর।
সুরমা মেন্টাল ক্লিনিক (প্রাইভেট) লি. এর আমিও একজন অংশীদার। এই প্রতিষ্ঠানের আরেক অংশীদার মাহমুদুল হাসান হিরোক ও সায়েম এর পূর্বে নির্বাচনে দাঁড়িয়ে পরাজিত হলেও এবারের নির্বাচনে আমি জয়লাভ করি। আমার বিজয়ে তারা ইর্ষান্বিত হয়ে ওঠে। তারই ধারাবাহিকতায় এই সন্ত্রাসীরা আমার কার্যালয়ে ভাংচুর করে এবং আমার ছোট ভাইয়ের ওপর হামলা করে। তিনি আরও জানান, হামলীকারীদের বিরুদ্ধে চুরি, কিডনাপ, মাদকদ্রব্য, চাদাবাজির একাধিক মামলা রয়েছে। এই সংবাদ লেখার সময় মামলার প্রস্তুতি চলছিলো।
ঘটনার সংবাদ পেয়ে পাবনা পৌর মেয়র শরিফ উদ্দিন প্রধান আহত মো. শাকিল শেখকে দেখতে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে দেখতে যান।
এই হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. তাজুল হোসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *