অালিফ হোসেন চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি ঃ

মোছাঃ সুমাইয়া খাতুন, পিতা-আব্দুস সামাদ, সাং- দৌলতদিয়াড় বঙ্গজপাড়া, থানা ও জেলা-চুয়াডাঙ্গা এর সাথে মোঃ আকাশ মিয়া, পিতা-মোঃ হাবিবুর রহমান, সাং-ওসমানপুর, থানা-আলমডাঙ্গা,জেলা-চুয়াডাঙ্গার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে সুমাইয়া খাতুন ও আকাশ মিয়া তাদের পরিবারকে কিছু না জানিয়ে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বিবাহ করে দাম্পত্য জীবন শুরু করে। কিছুদিন না যেতেই আকাশ সুমাইয়া খাতুনের সাথে খারাপ ব্যবহার ও শারিরীক নির্যাতন করে। সুমাইয়া খাতুন শারিরীক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তার বাবার বাড়ি ফিরে যায়। এরপর আকাশ সুমাইয়ার কাছে যৌতুক দাবি করে এবং না দিলে তাকে স্ত্রী হিসাবে স্বীকার করবে না বলে হুমকি দেয়।

সুমাইয়া খাতুন বিভিন্ন জায়গায় তার সমস্যার সমাধান চেয়ে যোগাযোগ করেও কোন সমাধান না পেয়ে। অবশেষে তার অসহায়ত্ব থেকে পরিত্রান পাওয়ার জন্য মান্যবর পুলিশ সুপার চুয়াডাঙ্গা মহোদয়ের নিকট আসেন। পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গা মহোদয় উক্ত বিষয়টির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তার কার্যালয়ে অবস্থিত “উইমেন সাপোর্ট সেন্টার’কে” দায়িত্ব দেন। দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা উভয় পক্ষকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অদ্য ১০.১০.২০২১ খ্রীঃ তারিখে হাজির করেন। পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গা জনাব মোঃ জাহিদুল ইসলাম এর প্রত্যক্ষ মধ্যস্থতায় মোঃ আকাশ মিয়া তার স্ত্রী মোছাঃ সুমাইয়া খাতুনের সাথে পুনরায় সংসার করতে সম্মত হয়। অবশেষে পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গার হস্তক্ষেপে মোছাঃ সুমাইয়া খাতুন ফিরে পেল তার সুখের সংসার।

Leave a Reply