মিরু হাসান বাপ্পী
আদমদিঘী (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ
কোন টেন্ডার ছারাই বগুড়ার সান্তাহার পৌরসভার মেয়র পৌরসভার নিজস্ব তহবিলের লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করে প্রায় এক হাজার ফিট ড্রেনের সংস্কার কাজ এবং ওই ড্রেনের মাটি ও আবরজনা দিয়ে রেলওয়ে মালগুদাম খালাস পয়েন্ট ভরাট করে
পৌরসভার রাজস্ব খাতের টাকা অপচয় করাসহ এ কাজের সময় ড্রেনের দুই ধারে রেলওয়ের জায়গায় গড়ে উঠা ছোট বড় বিভিন্ন জাতের ২০ -২৫টি গাছ উপড়ে ফালা হয়েছে।

বলে অভিযোগ উঠেছে। অনিয়মের মাধমে করা একাজ এলকার কোন ওপকারে আসবেনা বলে
অনেকে জানিয়েছেন। একটু বৃস্টি হলেই ড্রেন থেেেক তোলা আবরজনাও মাটি ফের ওই ড্রেনে পরে ড্রেনটি পুনরায় মুজে যাবে। ফলে সংস্কারের পুরোটাকা গচ্ছায় যাবে।

এঘটনা নিয়ে এলাকায় জনসাধারনের মাঝে নানা প্রশ্ন উঠার পর কাজটি বন্ধ করে দিয়ে পরে টেন্ডারের মাধ্যমে করা হবে বলে সংশিষ্ট সুত্রে জানাগাছে।
জানাযায়, সান্তাহার পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু কোন টেন্ডার ছারাই সান্তাহার পৌরসভার ৭ওয়ার্ডের ঘোড়াঘাট হতে ১ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম লোকো কলোনীর পরিতাক্ত ইক্ষক্রয় কেন্দ্র পর্যন্ত প্রায় এক হাজার ফিট ড্রেন সংস্কারের নামে ভিকু মিশিন দিয়ে ওই ড্রেনের মাটি ও আবরজনা তুলে স্থানীয় রেলওয়ের মালগুদাম খালাস পয়েন্ট ভরাট করে পৌরসভার রাজস্ব তহবিলের লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করে অপচয় করাসহ ওই ড্রেনের
দুই ধারে রেলওয়ের জায়গায় গড়ে উঠা বিভিন্ন জাতের ২০-২৫টি গাছ উপড়ে ফালা হয়েছে।

অনিয়মের মাধমে করা একাজ এলাকার কোন ওপকারে আসবেনা বলে অনেকে
জানিয়েছেন একটু বৃস্টি হলেই ড্রেন থেেেক তোলা আবরজনা ও মাটি ফের ওই ড্রেনে পরে ড্রেনটি পুনরায় মুজে যাবে। ফলে সংস্কারের পুরো টাকা যাবে গচ্ছায়। এবিষয়টি নিয়ে এলাকায় সর্বসাধারনের মাঝে নানা প্রশ্ন উঠার পর কাজটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আদমদীঘি উপজেলা আঃ লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সাজেদুল ইসলাম চম্পা বলেন এত বড় কাজ টেন্ডার ছারা করা ঠিক হয়নি। কাজটা টেন্ডারের মাধ্যমে একবারে করা উচিৎছিল।
যেভাবে কাজ করা হযেছে তাতে একটু বৃস্টি হলে ড্রেন মুজে যাবে। খরচ করা পৌরসভার টাকা গচ্ছা যাবে। নাম না জানানোর সর্ত্তে শহরের ৩ নম্বর জনৈক এক বাসিন্দা জানান যেকাজ করা হয়েছে এটা সুধু লোক দাখানো একাজে এলাকাবাসি কোন ফল পাবেনা।

এব্যাপারে সান্তাহার পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টুর সাথে কথা বললে তিনি বলেন যখই একাটা ভালো কাজ করি তখইন মানুষ সমালোচনা করে। বর্ষা মৌসুমে এলাকায় যেন জলাবদ্ধতা সৃস্টি না হয় সেজন্য পরিষদের আলোচনার সিদ্ধান্ত হবার পর কাজটি করা হয়।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *