মোঃ আবু তৈয়ব. হাটহাজারী ( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি :

চট্টগ্রাম ফটিকছড়ির মাইজভান্ডার এলাকায় দারুচ্ছালাম ঈদগাহ (কউমি) মাদ্রাসায় সশস্ত্র হামলার ঘটনায় প্রধান আসামি স্থানীয় যুবলীগ নেতা মো. হাসান (৩৮)কে গ্রেফতার করেছে ফটিকছড়ি থানা পুলিশ। সে মাইজভান্ডার নানুপুর এলাকার মৃত নুরুচ্ছফার ছেলে।

বুধবার (০৬ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে চট্টগ্রাম চাঁন্দগাও থানাধীন শোলকবহর এলাকা থেকে র‍্যাব-৭ এর টহল টিম এর মাধ্যমে ফটিকছড়ি থানা পুলিশের তৎপরতায় তাকে আটক করা হয়।

এর আগে, গত ৪জানুয়ারি সকালে মাদ্রাসায় সশস্ত্র হামলার ঘটনা পরবর্তী রাতে স্থানীয় যুবলীগ নেতা মো. হাসানকে প্রধান আসামী করে ১০জন নামীয় ও ১০/১২ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে ফটিকছড়ি থানায় মামলা দায়ের করেন ওই মাদ্রাসার পরিচালক মুফতি মনির।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই দেলোয়ার হোসেন বলেন, মাদ্রাসা হামলা ঘটনার প্রধান আসামিকে র‍্যাব-৭ এর সহযোগিতায় আমরা আটক করতে সক্ষম হয়েছি। অতিদ্রুত এ ঘটনার সাথে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

উল্লেখ্য, গত ৪ জানুয়ারি সকাল ১১টার দিকে উপজেলার পশ্চিম নানুপুর গ্রামের মাইজভান্ডার মান্নানীয়া সড়কের পাশে দারুচ্ছালাম ঈদগাহ মাদ্রাসা নির্মাণকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনা ঘটে। এতে ৫ জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৯ জন আহত হয়। স্থানীয়দের অভিযোগ, স্থানীয় যুবলীগ নেতা হাসান দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র ও ২০/২৫ সদস্যের একদল সাঙ্গ-পাঙ্গ নিয়ে মাদ্রাসায় অতর্কিতভাবে ভাংচুর করে লুটপাট করে এবং বাঁধা দিতে গেলে গুলি চালায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *