বাহার উদ্দিন, ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার জনবান্ধব নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব শীতেষ চন্দ্র সরকার ইউএনও মহোদয় এবং ফুড ইন্সপেক্টর জনাব রাশেদ হাসান, ফুলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ পুলিশ কর্মকর্তা জনাব আব্দুল্লাহ আল মামুন সাহেবের নির্দেশে ফুলপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) জনাব আব্দুল মোতালেবসহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিংহেস্বর বাজারে চোরাকারবারীকে আইনে কাছে সোপর্দ করার হয়।
ইতিমধ্যে ফুলপুর উপজেলার নির্বাহি কর্মকর্তা বলেনএই চোরাকারবারীকে আইনে সোপর্দ করার জন্য প্রস্তুতি চলছে যে কোন মুহূর্তে মামলা আমি অন্যায় কে একজন নির্বাহী অফিসার হিসেবে কখনো বরদাস্ত করব না সে যেই হোক তাকে আইনের আওতায় আসতেই হবে ৷ সিংহেশ্বর বাজার থেকে সরকারি চাল গরিব দুঃখী মানুষের জন্য বরাদ্দকৃত চাল কালোবাজারি কাছ থেকে কিনে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে শতশত এলাকার ভুক্তভোগীরা জানান।
উক্ত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব নজরুল ইসলাম বলেন, কালোবাজারি শহিদুল ইসলাম শহীদের এমন কর্মকাণ্ড এটা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, প্রতি বছরই অন্যায় ভাবে লাভবান হওয়ার জন্য কালোবাজারে বিক্রি করে।এই শহীদ অন্য কালোবাজারি কাছ থেকে অবৈধভাবে সরকারী চাল ক্রয় করে অন্য জেলায় বিক্রি করে দেয়। এটাই কালোবাজারিদের এই বছরের নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আরও জানা গেছে, ১৩ সেপ্টেম্বর রোজ সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে উপজেলার সিংহেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন বাজারে মোঃ শহিদুল ইসলাম ওরফে শহিদের দোকান থেকে এসব চাল জব্দ করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার চাল জব্দের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আড়াই টন চাল জব্দ করে থানায় রাখা হয়েছে। যার দোকান থেকে এসব চাল জব্দ করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে একটা মামলা করতে বলেছি। দোকান মালিক শহিদ বর্তমানে পলাতক রয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ রাশেদ হাসান বলেন, শহিদ একজন দোকানদার ও ফরিয়া ব্যবসায়ী। সে কোন ডিলার নয়। আমরা তার বিরুদ্ধে ফুলপুর থানায় ১টি মামলা করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *