মিরু হাসান বাপ্পী
বগুড়া জেলা প্রতিনিধি:বগুড়ার শেরপুরে ফসলি জমির মাঠ থেকে এক হিন্দু সন্ন্যাসীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাঁর নাম পোল্লাত চন্দ্র সরকার (৫৫)। রবিবার (৩১ অক্টোবর) বেলা সাড়ে বারোটার দিকে উপজেলার বিশালপুর ইউনিয়নের নাগরপাড়া গ্রামের মাঠ থেকে নিহতের লাশটি উদ্ধার করা হয়।

পরে লাশটি ময়না তদন্তের জন্য বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

নিহত সন্ন্যাসী পোল্লাত চন্দ্র সরকার জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলার পেংহাজারকি উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত কান্ত চন্দ্র সরকারের ছেলে। তিনি চিরকুমার এবং সন্ন্যাস জীবনযাপন করতেন।

শেরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আজাহার আলী জানান, সকালে স্থানীয় লোকজন ফসলি মাঠে কাজ করতে যান। একপর্যায়ে মাঠের মধ্যে থাকা একটি ইউক্যালিপটাস গাছের নিচে সন্ন্যাসী পোল্লাত চন্দ্রের লাশ পড়ে থাকতে দেখে থানায় সংবাদ দেন। এরপর ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, নিহতের শরীরে আঘাতের তেমন কোনো চিহৃ নেই। তবে মাথার একপাশে সামান্য ক্ষত রয়েছে। এমনকি ওই ক্ষতস্থান থেকে রক্তও বের হয়েছে বলে দেখা যায়। আসলে তাঁকে খুন করা হয়েছে নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে সেটি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তাই ওই হিন্দু সন্ন্যাসীর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশটি বগুড়ার শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের এই প্রতিবেদন হাতে পাওয়া গেলেই কেবল তাঁর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা ও বলা সম্ভব হবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে অত্র বিশালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন জানান, বেশকিছুদিন ধরেই সাধু-সন্ন্যাসী বলে খ্যাত পোল্লাত চন্দ্র সরকার তার ইউনিয়নে অবস্থান করছিলেন। এলাকার বিভিন্ন নির্জন স্থানে বসে নানা মন্ত্র সাধন করতেন। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার (৩০ অক্টোবর) রাতে নাগরপাড়া গ্রামের ফসলি মাঠের মধ্যে অবস্থিত একটি পুরণো ইউক্যালিপটাস গাছের নিচে ধ্যানে বসেন। কিন্তু সকালে মিলল তাঁর লাশ। যা ভেবে কোনো কূল-কিনারা পাচ্ছেন না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

Leave a Reply