রাকিব হাসান রোশান,স্টাফ রিপোর্টারঃ সুস্থ দেহ সুস্থ মন, খেলা অতি প্রয়োজন।খেলাধুলা মন কে সুস্থ রাখে,তাই খেলাধুলার বিকল্প কিছু নেই। করোনা ভাইরাসের কারণে দীর্ঘ দিন মাঠে গড়ায়নি খেলা।
তারই লক্ষ্যে পাবনার চাটমোহরে পাশাপাশি দুটি গ্রামের কাতুলী ফুটবল একাদশ বনাম বাঙ্গালা ফুটবল একাদশের মাঝে ঈদ উপলক্ষে এক প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করা হয়।

আজ ২৩ জুলাই,শুক্রবার,বিকেল ৪ টায় বাঙ্গালায় ঐতিহাসিক খেলার মাঠে মুখোমুখি হয় কাতুলী ফুটবল একাদশ বনাম বাঙ্গালা ফুটবল একাদশ। উক্ত খেলায় বাঙ্গালা ফুটবল একাদশকে ৪-০ গোলে হারিয়ে দূর্দান্ত জয় তুলে নেয় কাতুলী ফুটবল একাদশ।

ম্যাচের শুরু থেকেই দেখা যায় কাতুলী ফুটবল একাদশের দাপট।ম্যাচ শুরুর ১২ মিনিটের মধ্যেই তিন গোল দিয়ে চাপে রাখে বাঙ্গালা ফুটবল একাদশকে।খেলা শুরু হওয়ার ৪ মিনিটেই রাকিব হাসান রোশান’র বাড়ানো লম্বা পাস থেকে দারুণ এক গোলে বল জালে জড়ায় স্টাইকার হেলাল উদ্দিন।এর তিন পড়েই কর্ণার পায় কাতুলী ফুটবল একাদশ। কর্ণার থেকে বাড়ানো বল পায় ফাঁকায় দাড়িয়ে থাকা শুভ ইসলাম। কোনাকুনি শর্টে গোলরক্ষককে পরাস্ত করে বল জালে জড়ায় শুভ ইসলাম।দ্বিতীয় গোলের রেশ না কাটতেই, আরো এক গোল তুলে নেয় কাতুলী ফুটবল একাদশ। বাঙ্গালা ফুটবল একাদশের গোলকিপারের বাড়ানো বল পেয়ে যায় বিপরীত দলের খেলোয়াড় রাকিব হাসান রোশান।ডি বক্সের বাইরে থেকে গোল রক্ষকের চোখ ফাঁকি দিয়ে এক কোণা দিয়ে বল জালে জড়ান রাকিব হাসান রোশান।

প্রথমার্ধে তেমন কোন সুযোগ তৈরী করতে পারেনি বাঙ্গালা ফুটবল একাদশ। কাতুলী ফুটবল একাদশ ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায়।বিরতি শেষে,বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করে কাতুলী ফুটবল একাদশ। বিরতীর ১০ মিনিটে বিপ্লব হোসেনের বাড়ানো লম্বা পাসে হেডে দূর্দান্ত এক গোল করে হেলাল হোসেন। রেফারির অফসাইডের বাঁশি তে গোলটি বাতিল হয়ে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে বাঙ্গালা ফুটবল একাদশ। ডিফেন্ডার বিপ্লব, নাজমুল,আরিফ,হাছান,সাগর কে ফাঁকি দিতে পারছিলো না বাঙ্গালা ফুটবল একাদশ। দুইটি সুযোগ তৈরী করছিলো,তবে কাতুলী ফুটবল একাদশের তরুণ গোলরক্ষক জিহাদ শেখের দূর্দান্ত সেভে গোল করতে পারেনি বাঙ্গালা ফুটবল একাদশের স্টাইকাররা।কাতুলী ফুটবল একাদশের মিড ফিল্ডার রোকিব,সাগর,শুভ’র দারুণ দেওয়া নেওয়ায় আক্রমণ বাড়তে থাকে। খেলা শেষ হওয়ার ৫ মিনিট পূর্বে বিপ্লব এর পাস থেকে কাতুলী ফুটবল একাদশের সিনিয়র খেলোয়াড় ও সেরা স্টাইকার রফিকুল ইসলাম একজনকে কাটিয়ে গোলরক্ষক কে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে স্কোরশীটে নাম লেখান।

রেফারীর শেষ বাঁশিতে, খেলা সমাপ্ত হয় ৪-০ তে,বিজ্ঞাপন বিজয় উদযাপন করে কাতুলী ফুটবল একাদশের খেলোয়াড়, সমর্থকেরা।

উক্ত খেলায়, প্রধান রেফারির দায়িত্বে ছিলো সাইফুল ইসলাম।

কাতুলী ফুটবল একাদশের কোচের ভূমিকায় যৌথ ভাবে ছিলেন,সুজন আল মাহমুদ, বাচ্চু সরদার,সজীব মোল্লা রহিম,আল-মামুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *