নলডাঙ্গা (নাটোর) প্রতিনিধিঃবাংলদেশের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী বদন খেলাকে বর্তমান সমাজে আর দেখা যায় না বললেই চলে । হারিয়ে যাচ্ছে এই খেলা । বর্তমান সমাজের ডিজিটাল ব্যবস্থাতে আর দেখা যাই না ঐতিহ্যবাহী বদন খেলা ।এক সময় বাংলাদেশের শিশু থেকে যুবকের প্রিয় খেলা ছিল বদন । যাকে ঘিরে আয়োজন হত বিভিন্ন প্রতিযোগিতা মুলোক আয়োজন। বদন খেলা গ্রামীণ খেলা গুলোর মধ্যে একটা জনপ্রিয় খেলা। অথচ সময়ের সাথে সাথে অন্যান্য গ্রামীণ খেলাধুলার পাশাপাশি এই খেলাটি আজ সময়ের পথপরিক্রমায় হারিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় পরিবেশ কর্মী ও সাংবাদিক ফজলে রাব্বি জানান আগের দিনে আমরা পাড়া মহল্লার যুবকেরা দলবেঁধে বদন খেলতাম অথচ বর্তমানে যুবকরা কম্পিউটার গেমস, ভিডিও গেমস সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক, টুইটার, ইউটুব, ইত্যাদি) নিয়ে ব্যস্ত থাকে।
দেশের বেশিরভাগ মানুষ গ্রামাঞ্চলে বাস করলেও কালের বিবর্তনে যুগের গতানুগতিক হাওয়ায় গ্রামের জনপ্রিয় খেলাগুলো আজ হারিয়ে যেতে বসেছে।

আমতলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস এম ফকরুদ্দিন ফুটু বলেন আধুনিকতার ছোয়া লাগার কারণে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী খেলা আমাদের মাঝ থেকে আজ হারিয়ে যাবার পথে। পাড়ায় পাড়ায় আগে বদন সহ নানান গ্রামীণ খেলা দেখা যেত। কিন্তু এখন আর দেখা যায় না। এই খেলা গুলোকে এখন আর কেউ উপভোগ করতে পারে না। গ্রামীণ খেলা গুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে গ্রামের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ও সচেতন মহলের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন যাতে করে গ্রামীণ খেলাধুলা হারিয়ে না যায়।

হরিদা খলসী গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোজাফফর রহমান নিউটন সৃতিচারণ করে বলেন ছাত্র বয়সে অনেক বদন খেলেছি এবং পুরুষ্কার অর্জন করেছি। এই খেলা ঐতিহ্য হারানোর মূল কারণ হচ্ছে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ না করা।

এ বিষয়ে নলডাঙ্গা উপজেলা ক্রিড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক এস এম ফিরোজ বলেন আমি নিজেই একজন বদন খেলোয়াড় ছিলাম। কিন্তু বর্তমানে যুবকদের মাঝে আর বদন খেলার আগ্রহ নেই, যদি নলডাঙ্গার যুবকরা আগ্রহ পোষণ করে তাহলে নলডাঙ্গায় একটি বদন টিম গঠন সহ প্রতিযোগিতা মুলক আসর আয়োজন করবো।

Leave a Reply