হৃদয় হোসাইন,(বেড়া) প্রতিনিধি: পাবনার বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রিপ্রেজেন্টটিভদের দৌরাত্ম্যে দিন দিন বেড়েই চলছে অতিষ্ঠ সেবা নিতে আসা রোগীও রোগীর স্বজন।ওষুধ বাজার জাত করণে কোম্পানিগুলোর মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ ওষুধটির উপকরণ, কার্যকরিতা ইত্যাদি সম্পর্কে চিকিৎসকদের অবহিত করতে এবার ভিন্ন কৌশলে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনুপ্রবেশ করছে।হাসপাতালের অভ্যন্তরে কিংবা আঙ্গিনায় অফিস টাইম রিপ্রেজেন্টটিভদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছেন না কেউই।রিপ্রেজেন্টটিভদের এমন দৌরাত্ম্যে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় ও দরিদ্র রোগীদের বাড়ছে ভোগান্তি।কেউ কেউ দেখাচ্ছেন করা মেজাজ।অভিযোগ রয়েছে,মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ নিয়োগের মাধ্যমে রোগীদের ব্যবস্থাপত্রে কোম্পানিগুলো নিজেদের ওষুধ লিখতে চিকিৎসকদের প্ররোচিত করছে এবং অন্য কোম্পানির সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা দখল করতে নানা ধরনের সুবিধাও দিচ্ছে।এ অবস্থায় চিকিৎসকরা ওষুধ কোম্পানির হাতে একপ্রকার জিম্মি হয়ে পড়েছেন।এতে ওষুধ ও সেবা নিয়ে এক ধরনের অসুস্থ বাণিজ্য চলছে।এ কারণে দরিদ্র ও অসহায় মানুষগুলো প্রকৃত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।ওষুধের বিক্রি বাড়ানোর কাজে নিয়োজিত এসব প্রতিনিধির ওপর বিক্রির-লক্ষ্য পূরণে নিজ নিজ কোম্পানির দিক থেকে প্রচন্ড চাপ থাকে।লক্ষ্য পূরণের জন্য কোম্পানির পক্ষ থেকে রিপ্রেজেন্টটিভ এরা বিভিন্ন ধরনের পুরস্কার উপহার দেন ডাক্তারদের।এসব সুবিধা নিয়ে রোগীর ব্যবস্থাপত্রে বেশি ওষুধ লিখতে তারা অনেক সময় বাধ্য হন।এক্ষেত্রে কনিষ্ঠ স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র গুলো প্রধান টার্গেট।সর্বশেষ সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক কর্তৃপক্ষ ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদেরকে হাসপাতালের অভ্যন্তরে কিংবা আঙ্গিনায় অবস্থান না করতে নির্দেশ দেয়। এর ব্যত্যয় ঘটলে সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানানো হয়।সরেজমিনে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঘুরে দেখা গেছে, ঔষধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মত।রোগী চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র নিয়ে বের হলেই তারা কৌশলে ছবি তুলে নিচ্ছেন।এতে ভোগান্তির মধ্যে পড়ছেন চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় রোগীরা।জানা যায়, ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধির বিচরণ কেবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে নয়,সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও প্রাইভেট চিকিৎসকদের চেম্বার থেকে রোগী বের হওয়া মাত্রই ঘিরে ধরছেন এবং প্রেসক্রিপশনের ছবি তুলছেন। প্রেসক্রিপশনের ছবি তোলার বিষয়ে অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা গেল নিজেদের কোম্পানির ওষুধ লেখার জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন ও দামি উপহার দেওয়া হচ্ছে ডাক্তারদের। ডাক্তাররা ঠিকমতো ব্যবস্থাপত্রে ওষুধের নাম লিখছেন কিনা প্রতিনিধিরা পরখ করে দেখছেন ছবি তুলে।ডাক্তারদের দেয়া উপহারের মধ্যে কোম্পানির হরেক রকম দামি ওষুধ, ঘড়ি, খাবার, এয়ারকুলার, কলম, প্যাড, ব্যাগ, মগসহ দেশে-বিদেশে সেমিনারে স্পন্সর, সবই করা হচ্ছে ওষুধের কাটতি বাড়িয়ে মুনাফা লাভের আশায়। কোন কোন কোম্পানি ডাক্তারদের নগদ টাকারও অফার দিয়ে থাকে।যেহেতু রিপ্রেজেন্টটিভদের কাজকর্ম আমাদের কারো অজানা না।তাহলে বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রিপ্রেজেন্টটিভদের অবস্থান কারো জানা, বুঝার বাঁকি থাকে না।সেবা নিতে আসা রোগীরা জানান আমরা জানি বুঝি কোন ঔষুধ ভালো কাজ করে। আমরা রোগ অনুযায়ী ঔষধ খাবো।এবিষয় বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা:ফাতেমা তুয জান্নাত বলেন আমরা ওদের নিষেধ করেছি। প্রথমে মৌখিকভাবে নিষেধ করেছি,এরপর আমরা নোটিশ করব।এটাতে না শুনলে আমরা প্রশাসনিক একটা ব্যবস্থা নিব।অফিস টাইম রিপ্রেজেন্টটিভদের প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষেধ।

Leave a Reply