এম এইচ লিপু মজুমদার ধর্মপাশা প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলার চামরদানী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি প্রভাকর তালুকদার পান্নার বিরুদ্ধে স্থানীয় মধ্যনগর বাজারের এক ব্যবসায়ীর তিন লাখ ১৫হাজার টাকা আত্মসাত করার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। পাওনা টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় ও জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আজ (৩নভেম্বর) বুধবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে উপজেলার মধ্যনগর বাজারের বাসিন্দা ও চাল ব্যবসায়ী ভুক্তভোগী লিটন সরকার(৪০) তাঁর নিজ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী ওই ব্যবসায়ী উল্লেখ করেছেন, উপজেলার চামরদানী ইউনিয়নের কামারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা প্রভাকর তালুকদার পান্না মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পদে রয়েছেন। তিনি উপজেলার চামরদানী ইউনিয়নে ইউপি চেয়ারম্যান পদে থাকাকালীন সময়ে ২০১২সালের ২৬অক্টোবর থেকে ২০১৫সালের ৩১মার্চ পর্যন্ত টিআর/কাবিখার চাল দেওয়ার কথা বলে ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে তিনি তিন লাখ ৭৫হাজার টাকা নেন । এর মধ্যে ওই ব্যবসায়ীকে তিনি ৬০হাজার টাকা মুল্যের চাল বুঝিয়ে দিয়েছেন। অবশিষ্ট তিন লাখ ১৫হাজার টাকা দেই দিচ্ছি বলে নানা অজুহাত দেখিয়ে সাবেক ওই ইউপি চেয়ারম্যান সময় ক্ষেপন করে আসছেন। সর্বশেষ গত ২৮অক্টোবর বেলা দুইটার দিকে উপজেলার মধ্যনগর বাজারের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ওই ব্যবসায়ী লোকজনদের সামনে সাবেক ওই ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাকর তালুকদার পান্নার কাছে পাওনা তিন লাখ ১৫হাজার টাকা চাইলে সাবেক ওই চেয়ারম্যান টাকা দেবেন না বলে জানান। এ নিয়ে এক পর্যায়ে ওই ব্যবসায়ীকে লোকজনদের সামনে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করাসহ তাঁকে প্রাণ নাশের হুমকি দেন সাবেক ওই ইউপি চেয়ারম্যান। এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ওই ব্যবসায়ী গতকাল মঙ্গলবার (২নভেম্বর) মধ্যনগর থানায় একটি জিডি করেছেন।
মধ্যনগর বাজারের ব্যবসায়ী লিটন সরকার বলেন,সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাকর তালুকদার পান্না ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে আমার পাওনা তিন লাখ ১৫হাজার টাকা আত্মসাত করেছেন। টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় ও জানমালের নিরাপত্তা চেয়ে এবং প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সহায়তা চেয়ে আমি আজ সংবাদ সম্মেলন করেছি।
মধ্যনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও চামরদানী ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাকর তালুকদার পান্না বলেন, মধ্যনগর বাজারের ব্যবসায়ী লিটন সরকারের সঙ্গে আমার কোনোধরণের অর্থনৈতিক লেনদেন হয়নি। আমার কাছে সে টাকা পায় এমনটি যদি সে প্রমাণ করতে পারে তাহলে আমার যা শাস্তি হবে আমি তাই মাথা পেতে নেব। আসল কথা হচ্ছে, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আমি আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। এলাকায় আমার বেশ সুনাম রয়েছে। এই সুনাম নষ্ট করার জন্য আমাকে জড়িয়ে একটি কুচক্রী মহল এ ধরণের মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমাকে হয়রানি করার উদ্দ্যেশ্য এসব গুজব রটাচ্ছে।
মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নির্মল দেব বলেন, মধ্যনগর বাজারের ব্যবসায়ী লিটন সরকার এ ঘটনা নিয়ে থানায় একটি জিডি করেছেন। ঘটনাটিকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে

Leave a Reply