মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি:

রংপুরের মিঠাপুকুরে গ্রাম পুলিশের হাত থেকে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী পলিয়ে গেছে। ইয়াবাসহ আটক হওয়া ওই মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যাওয়ায় জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১১টার দিকে
উপজেলার ময়েনপুর ইউনিয়নের বাতাসন বাজার এলাকা থেকে গ্রাম পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে যায় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। পলাতক ওই মাদক ব্যবসায়ীর নাম দুলু মিয়া ওরফে খুটা দুলু।

সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলার বাতাসন বাজার এলাকায় হাফিজুর রহমান ও লিটন দাশসহ ৬জন গ্রাম পুলিশ মিলে ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ী দুলু মিয়া ওরফে খুটা দুলুকে আটক করে। দীর্ঘদিন ধরে মাদকের কারবার করে আসা দুলু মিয়াকে আটকের কথা শুনে ঘটনাস্থলে স্থানীয় জনগণের আগমন ঘটে। এরপর আটক মাদক ব্যাবসায়ীকে বাতাসন বাজার থেকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে গ্রাম পুলিশ সদস্যরা। বাজার থেকে কিছুদুর আসার পর গ্রাম পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে যায় আটক মাদক ব্যবসায়ী।

একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আটকের পর উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তার নিকট বিষয়টি অবগত না করে উল্টো ওই মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ির দিকেই কেন নিয়ে গেল আর ৬জন গ্রাম পুলিশের হাত থেকে একজন মানুষ কিভাবে পালালো এমন প্রশ্ন এখন স্থানীয়দের।

জনসাধারণের প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে অনুসন্ধানের একপর্যায়ে স্থানীয় এক মুদি দোকানের সামনে গ্রাম পুলিশের সদস্যদের সাথে এই প্রতিবেদকের সাক্ষাৎ হয়। ওই মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে গ্রাম পুলিশ হাফিজুর রহমান কৌশল অবলম্বন করে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও পরে দুলু মিয়া ওরফে খুটা দুলুকে ৪পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক করে গ্রাম পুলিশ লিটন দাশের বাড়িতে নিয়ে আসার সময় তাদের হাত থেকে চিহ্নিত ওই মাদক ব্যবসায়ী পালিয়ে যাওয়ার কথা বলে। এসময় ৬জন গ্রাম পুলিশের হাত থেকে ১জন মাদক ব্যবসায়ী কিভাবে পালিয়ে যেতে পারে জানতে চাইলে গ্রাম পুলিশ সদস্যরা বলেন আমাদের হাতে কামড় দিয়ে পালিয়ে গেছে। এ কথা বলতে বলতে গ্রাম পুলিশ সদস্যরা মিঠাপুকুর থানার এস আই আনিসকে মুঠোফোনে ঘটনার বিষয়ে জানান।

এরপর বাতাসন বাজার এলাকা থেকে এসআই আনিস তার সঙ্গীয় ফোর্সসহ দুলু মিয়া ওরফে খুটা দুলুর সহযোগী দুদু মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়াকে আটক করে। ঘটনাস্থলে গণমাধ্যমকর্মী
নিজের পরিচয় দিয়ে তথ্য সহায়তা চাইলে এসআই আনিস উল্টো গণমাধ্যমকর্মীর সাথে আগ্রাসী আচরণ করে বলেন “এই আপনি রেকর্ড করলেন কেন” বলে জনসাধারণের সামনে মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে মুঠোফোনের ফাইল ম্যানেজার ডিলেট করে দেন। ঘটনাস্থলে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীর কখনো স্থানীয় ঠিকানা কখনো তার পরিচয়পত্র দেখতে চায় ওই পুলিশ সদস্য। একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী পলাতক সেই নিউজ সংগ্রহের সময় পুলিশের এমন আচরণ নির্বাক হয়ে দেখতে থাকা জনমনে নানা প্রশ্নের দেখা দিয়েছে। দেশ ও জনগণের জন্য পুলিশ, শান্তির জন্য পুলিশ, দেশের কল্যাণে সত্য উদঘাটনে পুলিশ প্রশাসনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে এমনটাই প্রত্যাশা স্থানীয়দের।

এ বিষয়ে মিঠাপুকুর থানার অফিসার ইনচার্জ আমিরুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *