শেখ মো.সোহেল রানা, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ
মুন্সিগঞর ৬ উপজেলার মতো লৌহজং উপজেলায় প্রথমবার বাণিজ্যিকভাবে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করা হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়, সারাবিশ্বে সূর্যমুখী তেলের চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কারণে আমাদের বাংলাদেশে বাণিজ্যিকভাবে সূর্যমুখী চাষ শুরু করা হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় মুন্সিগঞ্জের সবকটি উপজেলায় এবছর পরীক্ষামুলকভাবে সূর্যমুখী ফুলের চাষাবাদ করা হয়। সেই লক্ষ্যে কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে কৃষককে বীজ বিতরণের মাধ্যমে আরডিএস জাতের সূর্যমুখী ফুলের চাষ করা হয়েছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার বৌলতলী ইউনিয়নের শুরপাড়া গ্রামের শাহিন খানের জমিতে দেখা যায় সারি সারি সূর্যমুখী গাছ সূর্যের হাসি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। কিছু কিছু দর্শনার্থী এসেছে ফুল দেখতে কিছু লোক এসেছে ছবি তুলতে। সূর্যমুখী ফুল চাষী মোঃ শাহিন খান দৈনিক মুন্সিগঞ্জের খবর কে জানান ,কৃষি অফিসারের অনুপ্রেরণায় প্রথমবারের মতো সূর্যমুখী ফুল চাষ করেছি। যদি দেখি অন্যান্য ফসলের চেয়ে লাভবান হই তাহলে আগামীতে ব্যাপকভাবে চাষাবাদ করব। একই এলাকার মোঃ আনিস খলিফা জানান, সরকারি প্রণোদনা বীজ পেয়ে সূর্যমুখী ফুল চাষ করেছি । তবে এর বীজ কিভাবে সংগ্রহ করতে হয় তা আমরা ভালোমতো জানিনা তাই কিছুটা সংশয়ে আছে।
আরেক চাষী মোঃ মিজান কাজি বলেন, আমি মূলত আলু চাষ করে থাকি ।তবে এ বছর কৃষি অফিসারের অনুপ্রেরণায় এক একর জমিতে সূর্যমুখী ফুল চাষ করেছি। কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় তাহলে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও মোঃ আলমগীর শেখ, মোঃ আফজাল শেখ সহ প্রায় ৬/৭ জন মিলে চার থেকে পাঁচ একর জমিতে সূর্যমুখী ফুল চাষ করা হয়েছে।
উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শরিফুল ইসলাম জানান, লৌহজং উপজেলার প্রায় ৭ হেক্টর জমিতে সূর্যমুখী ফুল চাষ করা হয়েছে। প্রথমবারের মতো সূর্যমুখী ফুল চাষ হওয়ার কারণে কৃষকরা কিছুটা বিচলিত ছিল ।তাদেরকে সঠিক সময়ে সঠিক পরামর্শ দেওয়ার কারনে ভালো চাষাবাদ হয়েছে। আশাকরি ঝড়-বৃষ্টি ও টিয়া পাখির উপদ্রব না হয় তাহলে কৃষকরা ভালো লাভবান হবেন।

শেখ মো.সোহেল রানা
০৮/০৪/২০২১
0১৩১-৫৫৬৩৩২৫

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *