সোহেল হোসেন লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম ভাদুর সুধারাম থেকে বালুয়া চৌমুহনী পর্যন্ত পিচঢালা সড়কটিতে এখন পিচের কোন অস্তিত্ব নেই। সড়কটি এখন মানুষের জন্য মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে৷ ২০ বছর আগে সড়কটি কাঁচা থেকে পাকা করণ হয়৷ সম্প্রতি ইটভাটার মাটি আনা- নেওয়ায় অবৈধ ট্রলির দানব চাকায় পৃষ্ট সড়কটি। পিচ উঠে খানাখন্দে যানচলাচল বন্ধ হয়ে আছে বহুদিন ধরে।
কাঁদাপানিতে হাঁটাও দূর্বিষহ হয়ে উঠেছে৷ অথচয় এ সড়ক দিয়ে ভাদুর উচ্চবিদ্যালয়, জিয়াউল হক হাইস্কুল এন্ড কলেজ, কেথুড়ী আলিম মাদ্রাসা, বাগে ইব্রাহীম মাদ্রাসা,মধ্যভাদুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী ও মধ্যভাদুর, পশ্চিম ভাদুর, উত্তরগ্রাম, চিলকা চাঁদপুর, পৈতপুরগ্রামের হাজারো মানুষ চলাচল করেন৷
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায, সড়কটি পুরো অংশ জুড়ে খানাখন্দে ভরা, পিচসহ সড়কের বেইজ, কংক্রিট উঠে এখন কাঁদাপানিতে ভরা৷ বিভিন্ন স্থানে মাটি ব্যবসায়ীরা ইটভাটর জন্য ফসলি জমির মাটি আনা দেওয়ার জন্য সড়ক কেটে সরু করে ফেলছে৷
নুর হোসেন ও ছায়েদ আলী জানান, এ সড়কটি ২০০০ সালে পাকা করা হয়৷ পরবর্তি ইটভাটার মাটির আনা নেওয়ার জন্য ট্রলি চলাচল করা কারনে অল্প সময়ের মধ্যে সড়কটি ভেঙ্গে যায়৷ সড়কটি সংস্কারে জন্য জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্টদের নিকট বারবার আবেদন করলেও করলেও এ ব্যাপারে তাঁরা কোন উদ্যোগ গ্রহন করছেন না৷ জনগুরুত্বপূর্ন সড়কটি দিয়ে মানুষ চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *