আমির হোসেন, গাজীপুর সিটি প্রতিনিধি:
আজ ৭ই মে, রোজ শুক্রবার জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও কার্যকরী সভাপতি প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা গাজীপুরের জনপ্রিয় সাবেক সংসদ সদস্য, স্বাধীনতার পদক প্রাপ্ত শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপি’র ১৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী। মরহুমের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে টঙ্গীসহ গাজীপুরের করোনা মহামারীতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বল্পপরিসরে দিবসটি পালন করা হয়।

তারই পরিপেক্ষিতে ৭ই মে শুক্রবার কাদেরিয়া টেক্সটাইলস্ মিলস্ মাঠ প্রাঙ্গণে গাজীপুর মহানগর যুবলীগের উজ্জ্বল নক্ষত্র জননেতা বিল্লাল হোসেন মোল্লার উদ্যোগে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে যুবলীগ নেতা আহসান উল্লাহ বক্সীর সার্বিক সহযোগিতায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, ইফতার ও দোস্ত অসহায়দের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়।

এ সময় বিল্লাল হোসেন মোল্লা প্রধান অতিথি হিসেবে তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং হত্যা মামলার রায় বাস্তবায়ন না হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন ও অবিলম্বে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের হত্যাকারীদের ফাঁসির রায় কার্যকর করার দাবী জানান।

উক্ত অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, যুবলীগ নেতা মুস্তাফিজুর রহমান, যুবলীগ নেতা সীমান্ত খোকন, যুবলীগ কর্মী ইব্রাহিম মামুন, সেলিম মাহবুব রোমান ও অন্যান্য কর্মী ও নেতৃবৃন্দ এবং সাংবাদিকৃন্দ।

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ৭ মে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে গাজীপুরের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য প্রখ্যাত এই শ্রমিক নেতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার টঙ্গীর নিজ বাসভবন নোয়াগাঁও এম.এ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রকাশ্য দিবালোকে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নির্মমভাবে নিহত হন। ওই দিন ১০নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখাকালীন সময়ে সন্ত্রাসীদের গুলিতে আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপি নিহত হন।

১৯৫০ সালের ৯ নভেম্বর গাজীপুরের পূবাইল ইউনিয়নের হায়দরাবাদ গ্রামে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা শাহ্ সুফী আলহাজ্ব আব্দুল কাদের, মাতা হাজী রুসতুমুনন্নেছা। তিনি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের দুই বার চেয়ারম্যান, এরপর গাজীপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও নির্বাচিত হয়েছিলেন।

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপি গাজীপুর-২ আসন থেকে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে আওয়ামীলীগ দলীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি গাজীপুরে সে সময় তাঁর সাংগঠনিক দক্ষতা দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে এলাকায় জনপ্রিয় নেতায় পরিণত হয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে শ্রমিক নেতা হিসেবে দেশে-বিদেশে খ্যাতি অর্জন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *