ফরিদুল ইসলাম নয়ন (নারায়ণগঞ্জ সদর প্রতিনিধি) :
ফতুল্লায় এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে আবাসন ব্যবসায়ী শামীম তারেক (৩৬) কে গ্রেপ্তার করেছে ফতুল্লা থানা পুলিশ।
শামীম তারেক সৃজন হাউজিং লিমিটেড নামের একটি আবাসন কোম্পানীর পরিচালক। সে পাগলা দেলপাড়া টাওয়ার পাড়ের মিলন মিয়ার ভাড়াটিয়া বয়রা ডাক্তারের ছেলে।

২৬শে মে (বুধবার) রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লাস্থ পাগলা এলাকার তার হাউজিং কোম্পানীর অফিস থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

শামীম তারেক এর আগেও একটি প্রতারণা মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। ম্যাজিস্ট্রেটের স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগে ২০১৭ সালের ১৬ নভেম্বর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বুধবার সকালে ধর্ষিতা তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীটির মা বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক আশিক ইমরান ও উপ-পরিদর্শক শামীম পাগলা দেলপাড়া টাওয়ার পাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে।

বাদী মামলায় উল্লেখ করেন যে, ফতুল্লা থানার পাগলা দেলপাড়ার টাওয়ারপাড়স্থ মিলনের ছয় তলার তৃতীয় তলায় ধর্ষক শামীম এবং নীচ তলায় বাদী স্ব পরিবারে ভাড়া থাকেন। সে সুবাদে পূর্ব পরিচয়ের সুত্র ধরে তার মেয়ে ধর্ষককে আংকেল বলে ডাকতো। চলতি মাসের ১৬ তারিখে দুপুর ২টার দিকে সে তার মেয়েকে ঘরে রেখে বাইরে গেলে বিবাদী তার মেয়ের মুখ চেপে ধরে প্রথম দফায় ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে একদিন পর ১৭ তারিখ দুপর আড়াইটার দিকে বিবাদী পুনরায় তার রুমে প্রবেশ করে তার মেয়েকে একা পেয়ে ছুরির ভয় দেখিয়ে দ্বিতীয় দফায় আবারো ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে তার মেয়ে অসুস্থ হয়ে পরলে শহরের ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তার মেয়ে তাদেরকে সব কিছু খুলে বলে।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, মামলা দায়েরের পরে অভিযুক্ত আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *