পনির
শেরপুর সদর প্রতিনিধি:
২১ শে জুলাই রোজ বুধবার মুসলমানদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় অনুষ্ঠান ঈদুল আজহা উপলক্ষে শেরপুর সদর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের খোয়ারপাড় শাপলাচত্বর মহল্লায় একমাত্র ১২শত খানার সমাজ ব্যবস্থায় প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ১১ শত পঁচিশ
জনকে কোরবানীর গোশত প্রধান করা হয়েছে।
মুসলমানদের সমাজ ব্যবস্থাটা হলো কুরবানির ঈদকে ঘিরে বছরে ১বার এবাবে আয়োজন করা হয়ে থাকে দেশের বিভিন্ন জায়গাতে।আবার কোনো কোনো জায়গাতে এরকম সামাজিক ব্যবস্থাটা নেই। এই রকম জাঁকজমকপূণ ও উৎসব মুখর
সমাজিক ব্যবস্থার সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব এমদাদুল হক মাস্টার সময় সংবাদ বিডি. কম কে জানান খোয়ারপাড় শাপলাচত্বর সমাজ ও শাপলাচত্বর মসজিদ ১৯৫৩ সালে প্রতিষ্ঠীত হয়। তখন থেকেই এই সামাজি ব্যবস্থা আজ পর্যন্ত একই ধারা চলে আসছে। এই ধারাবাহিকতায় যেন অব্যাহত থাকে নতুন কমিটি কে মৌখিক ভাবে জানিয়েছেন। খোয়ারপাড় শাপলাচত্বর সমাজের নতুন কমিটির সভাপতি এডভোকেট আকরামুজ্জামান ও সাধারন সম্পাদক হাছানূর রহমান আলাল জানান এই সমাজে আমরা দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই সমাজের আকার প্রসার করেছি। আগে কার্ডের ব্যবস্থা ছিলোনা নাম ডেকে মধ্যে রাত পর্যন্ত সমাজের লোকের দাঁড়িয়ে থেকে গোশতের প্যাকেট নিতে হত।আর এখন কার্ড নিয়ে জমা দিলেই গোশতের প্যাকেট পাওয়া যায়।আমরা এখন প্যাকেট হওয়ার পর ১০-১৫ মিনিট এর মধ্যে বার শত প্যাকেট দিতে সক্ষম। আরো বলেন আগামী বছরে আমরা স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে সমাজ পরিচালিত করবো।যাদের স্মার্ট কার্ড থাকবে তারাই একমাএ সমাজের গোশত পাবেন।এই সমাজে প্রায় একশত এর মতো কুরবানি হয় কিন্তু এইবার করোনা কালীন লকডাউনের কারনে এইবার মাএ সাতচল্লিশ টা কুরবানি হয়েছে। আমাদের মত এত বড় সমাজ খোঁজে পাওয়া কঠিন। অনেক সমাজ অনেক খন্ডে বিভিক্ত হয়েছে কিন্তু আমাদের সমাজ বিভিক্ত হতে দেইনাই এবং ভবিষ্যতে
হতে দেবোনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *