নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

পাবনায় প্রচার দলের নিবেদিত প্রাণ তৃণমূল বিএনপি নেতা আর কে সবুজ এমনটাই দাবি করেছে সাধারণ জনগন। তৃণমূলের পরিচিত মুখ
আর কে সবুজ যার পেশা নেতৃত্ব দেওয়া। ছাত্রজীবনে লেখাপড়ার পাশাপাশি সময় দিয়েছেন ছাত্র রাজনীতিতে তবে ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন না করতে পারলেও তৃণমূল বিএনপিতে সমালোচিত হয়েছেন ব্যাপক।

২০১০ সালে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি মেজর জিয়াউর রহমান-বীরউত্তম’র মৃত্যুবার্ষিকীতে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে সাবেক রাষ্ট্রপতির কর্মজীবন ও রাজনৈতিক জীবন এর উপর অসাধারণ বক্তব্য দিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

সেই জনপ্রিয়তার জের ধরে ২০১২ সালে আটঘড়িয়া উপজেলা যুবদলের কর্মী সমাবেশ করে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেন। ২০১৪ সালে আটঘড়িয়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

উক্ত নেতা ২০১৫ সালে বিএনপির সর্বাধিক প্রচার মাধ্যম বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচার দল পাবনা জেলা শাখার আহবায়ক নির্বাচিত হন।

দলীয় কাজে অংশগ্রহণ করতে গিয়ে আর কে সবুজ ২০১৬ সালে ১৩ই জানুয়ারি রাজনৈতিক কু-চক্রী মহলদের হাতে পড়ে প্রাণনাশের হামলার শিকার হন।

একই বছর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচার দলের রাজশাহী বিভাগীয় প্রচার দলের সমন্বয়ক হিসাবে নির্বাচিত হন।

২০১৮ সালে বিএনপির সার্বিক বিষয় নিয়ে অসাধারণ বক্তব্য উপস্থাপনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির বেশ কিছু নেতাকে বিএনপিতে যোগদান করাতে সক্ষম হন।
উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন’র উপদেষ্টা ও পাবনা জেলা বিএনপির আহবায়ক হাবিবুর রহমান হাবিব।

বর্তমানে দেশের বাইরে অবস্থান করেও বিএনপি’র সার্বিক কার্যক্রম প্রচার দলের মাধ্যমে তৃণমুলে পৌছে দিয়ে আসছেন তৃণমূল নেতা আর কে সবুজ।

এ সম্পর্কে পাবনা জেলা প্রচার দলের উপদেষ্টা ডাঃ আহমেদ মোস্তফা নোমান বলেন “প্রচার দলের সবুজ তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সংঘবদ্ধ রাখতে যে সকল কর্মসূচী নিয়েছে তা প্রশংসনীয়,সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় দেশের বাইরে অক্লান্ত পরিশ্রম ও কর্মের মাধ্যমে বিএনপির কার্যক্রমকে প্রচার দলের মাধ্যমে সাধারণ জনগনের কাছে পৌছে দেওয়া আসলেই দুর্বিষহ। আমি সবুজ সহ প্রচার দলের সকল নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *