ফেনী জেলা প্রতিনিধিঃ

ফেনীর সদর সাব-রেজিস্ট্রার অফিসে যেন দুর্নীতি ও অনিয়মের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। ঘুষ ছাড়া হয় না কোন কাজ।
জমির নিবন্ধন, নামজারি, জাল দলিলে জমি দখলসহ নানা ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন ভুক্তভোগীরা। জমির দলিল আটকে রেখে ভুক্তভোগীদের চাপের মুখে ঘুষ দাবি সাব-রেজিস্ট্রার, উম্মেদার, পিওন ও নকলনবিশদের নিয়মিত আচরণে পরিণত হয়েছে। ঘুষ আদায়ের কৌশল হিসেবে সাব-রেজিস্ট্রারের রুটিন মাফিক কাজ নকলনবিশ, উম্মেদার ও পিওন দিয়েও করানো হচ্ছে। এই সুযোগে নকলনবিশ, উম্মেদার ও পিওন কোটি কোটি টাকার মলিক হচ্ছেন।

বাংলাদেশ সরকারের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন ম্যানুয়াল-২০১৪ মানছেন না সাব-রেজিস্ট্রাররাও। তারা নিবন্ধন ম্যানুয়াল অনুযায়ী নিজেদের কাজ নকলনবিশ, উম্মেদার ও পিওনদের দিয়ে করাচ্ছেন। দলিল চেক করার কাজ সাব-রেজিস্ট্রারদের করার নিয়ম থাকলেও তা মানছেন না তারা। অনুসন্ধানে ও সরেজমিন এসব তথ্য উঠে এসেছে।

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধন ম্যানুয়াল-২০১৪-এর অধ্যায়-২৬-এ উল্লেখ আছে যে, সহকারীগণ কর্তৃক দলিল পরীক্ষাকরণ কাক্সিক্ষত নয়, এই কাজটি অবশ্যই স্বয়ং নিবন্ধনকারী কর্মকর্তা কর্তৃক সম্পাদিত হবে।

২০১৯ সালে রেজিষ্ট্রি হওয়া এমন বেশ কয়েকটি দলিল নম্বর প্রতিবেদকের হাতে আসে। গত কয়েকদিন ধরে ঢাকা এজি অফিসের তিনজন কর্মকর্তা ফেনী সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিসে আসে অডিটের জন্য।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে প্রতিবেদক, অডিট কর্মকর্তাদেরকে ৬ টি দলিল নম্বরসহ সকল তথ্যাদি মুঠোফোনে জানানো হয়।

অডিট কর্মকর্তাগণ প্রতিবেদককে মঙ্গলবার রাতে মুঠোফোনে জানায়, সদর সাব রেজিস্ট্রারকে এই ছয়টি দলিলের বিষয়ে আমরা আপত্তি জানিয়েছি। সাব রেজিস্ট্রার এই ছয়টি দলিলের কপিসহ যাবতীয় ডকুমেন্টস ঢাকায় পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন।

বুধবার সকালে সাব রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ শাহআলম দৈনিক আমাদের কন্ঠ পত্রিকার জেলা প্রতিবেদকের মুঠোফোনে ফোন করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ দেখে নেয়ার হুমকি প্রদান করে।

এ বিষয়ে সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম গতকাল ফেনী মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *