সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাংবাদিকদের স্বার্থ রক্ষা করা তথ্যমন্ত্রীর কাজ। সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা, নির্যাতন চালানোর ঘটনায় তার হস্তক্ষেপ প্রয়োজন ছিল সাবার আগে, অথচ তথ্যমন্ত্রী চুপ। আমরা এখনো সেটি লক্ষ্য করছি না। স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় দুর্নীতির আখড়া যা সর্বজন স্বকৃত। দুর্নীতির সংবাদ করায় মন্ত্রনালয়ের কক্ষে পাঁচ ঘন্টা আটকে রেখে সাংবাদিককে নির্যাতন করা হয়েছে। সাংবাদিকের উপর খড়গ আঘাত না এনে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানিয়েছে সাংবাদিকবৃন্দ।

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির প্রতিবাদে মঙ্গলবার (১৮ মে) বেলা ১২টায় মানববন্ধনে এসব কথা বলেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের কর্তব্যরত সাংবাদিকরা।

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্থা ও আটকসহ দেশব্যাপী সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত মানবন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি মমতাজ আহমেদ বাপী। সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সুজনের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু আহমেদ, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক কল্যাণ ব্যানার্জী, সাবেক সভাপতি আনিসুর রহিম, মনিরুল ইসলাম মিনি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি হাবিবুর রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, সাংবাদিক রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী, সেলিম রেজা মুকুল, হাফিজুর রহমান মাছুম, আব্দুল জলিল, ইদ্রিস আলী, অসীম বরণ চক্রবর্তী, অ্যাড. দীলিপ কুমার, আকরামুল ইসলাম।

প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে সাংবাদিকরা বলেন, প্রতিথযশা নির্ভীক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে যেভাবে নির্যাতন করা হয়েছে সেটি নির্মম ও বর্বর। স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব জেবুন্নেচ্ছা খানম সাংবাদিকের গলার টুটি চেপে ধরে হত্যাচেষ্টা করে সরকারকেই বেকায়দায় ফেলানোর অপচেষ্টা চালিয়েছেন। তার স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তির পাহাড় দুর্নীতির প্রমাণ করায়। অথচ তার শাস্তি না হয়ে দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় উল্টো সাংবাদিকের নামে মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। আমরা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তি ও ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *