নিজস্ব প্রতিবেদক: সাতক্ষীরায় জামায়াত-হেফাজতের মদদদাতা কালিগঞ্জ থানার ওসি’র সহযোগিতায়
সন্ত্রাসী আরফিুল ও শরিফুল বাহিনী কর্তৃক বাক প্রতিবন্ধি এক বৃদ্ধার
বসতভিটা দখল, তাকেসহ পরিবারের সদস্যদের নির্যাতন ও মিথ্যে মামলা দিয়ে
হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবেআব্দুল
মোতালেব এক সংবাদ সম্মেলনে কালিগঞ্জের কাঁকশিয়ালি গ্রামের মৃত মান্দার
আলী গাজীর স্ত্রী বাক প্রতিবন্ধি নছু বিবি লিখিত বক্তব্যে এই অভিযোগ
করেন। সংবাদ সম্মেলনে নছু বিবি’র পক্ষে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান তার বড়
মেয়ে শাহিদা বেগম। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার বয়স ৭৫ বছর। আমি
শারিরীকভাবে অসুস্থ্য এবং একজন বাক প্রতিবন্ধি নারী। বসত ভিটার বিয়য় নিয়ে
আমার ছোট ছেলে মোশারফ হোসেন (বাছা) বিগত ২০১৭ সালের ২৫ মার্চ প্রতিবেশী
এবাদুল হকের দুই ছেলে সন্ত্রাসী আরফিুল ও শরিফুলের বিরুদ্ধে তারালী
ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করলে তার মুচলেকা দিয়ে আপোষ করে নেয়। পরবর্তীতে
আবার বসতভিটা দখলের চেষ্টা করলে মোশারফ বাদি হয়ে ১৬ মে সন্ত্রাসী আরফিুল
ও শরিফুলের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৪৫ ধারায়
৯৩৮/১৭ নং পিটিশন মামলা করে। পরে ১০৭ ধারার মামলা করলে মুচলেকা দিয়েও
তারা আদালতের কোন আদেশ পালন করেনি। ফলে ছেলে মোশারফের সাথে তাদের বিরোধ
সৃষ্টি হয়। যে কারনে ২০১৮ সালের ২ মার্চ সন্ত্রাসী আরফিুল ও শরিফুলের
হাতে আমার ছেলে মোশারফ হোসেন হত্যার শিকার হয়। বৃদ্ধা নছু বিবি অভিযোগ
করে বলেন, আমি আমার স্বামীর বানানো বসত বাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে
আসছি। কিন্তু জামায়াত-হেফাজত ও সন্ত্রাসীদের মদদদাতা, সাধারণ মানুষের
আতংক ও বর্তমান সরকার বিরোধী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত কালিগঞ্জ থানার ওসি
দেলোয়ার হুসেন এর সক্রিয় মদদে সন্ত্রাসী আরফিুল ও শরিফুল গত ১ এপ্রিল
আমাকেসহ পরিবারের সদস্যদেরকে আমার স্বামীর বসত ভিটা থেকে বের করে দেয়।
পরের দিন ২ এপ্রিল আমাদের বিরুদ্ধে চাঁদাদাবি, মারপিট ও চুরিসহ বিভিন্ন
ধারায় কালিগঞ্জ থানায় একটি মিথ্যে মামলা দায়ের করে। মামলায় আমার পরিবারের
দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমাদেরকে হয়রানি করতে অজ্ঞাতনামা আরো
৪/৫জনকে আসামি করা হয়েছে। ওসি দেলোয়ার হুসেন আমাদেরকেও গ্রেপ্তার করার
জন্য পায়তারা করছেন। ওসি আমাদের কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করছে। উক্ত
চাঁদার টাকা না দিলে আমাদের বিরুদ্ধে আরো মামলা করবে বলে হুমকি দিচ্ছে।
ফলে ওসি দলোয়ার হুসেন এর ভয়ে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আমরা পালিয়ে
বেড়াচ্ছি।
তিনি মিথ্যে মামলার দায় থেকে অব্যহতি ও স্বামীর বসতভিটা ফিরে পেতে এবং
কালিগঞ্জ থানার ওসি দেলোয়ার হুসেন, সন্ত্রাসী আরফিুল ও শরিফুল বাহিনীর
হাত থেকে নিজের জীবন রক্ষা ও পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার দাবিতে
প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের আইজিপি, সাতক্ষীরা জেলা
প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা
করেন। এবিষয় জানতে চাইলে কালিগঞ্জ থানার ওসি দেলোয়ার হুসেন সংবাদ
সম্মেলনে তার বিরুদ্ধে নছু বিবি’র করা অভিযোগ মিথ্যে দাবি করে বলেন, একজন
বাদি মামলা দিয়েছে। আমি সেটি রেকড করে দুইজন আসামিকে গ্রেপ্তার পূর্বক
কারাগারে প্রেরণ করেছি। আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। নছু
বিবি’র অভিযোগ সঠিক নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *